অপরাধআন্তর্জাতিক

আবারও পাকিস্তানে ১৪ বছরের সংখ্যালঘু কিশোরীকে অপহরণের পর জোর করে ধর্মপরিবর্তন করার পর বিয়ে!

পাকিস্তানে (Pakistan) জোর করে ধর্ম পরিবর্তনের ঘটনা থামার নামই নিচ্ছেনা। একদিকে যেমন পাকিস্তানের মেয়েদের চিনে (china) পাঠানো হচ্ছে, তখন আরেকদিকে পাকিস্তানের সংখ্যালঘু মহিলা বিশেষ করে কিশোরীদের উপর ধার্মিক অত্যাচার চালানো হচ্ছে।

সম্প্রতি পাকিস্তানের করাচী থেকে এমনই এক ঘটনা সামনে এসেছে। যেখানে ১৪ বছর বয়সী এক খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী কিশোরী হুমা ইউনুসকে (Huma Younas) অপহরণ করে জোর করে ধর্মপরিবর্তন করানো হয়েছে। অভিযুক্ত আব্দুল জাব্বার ওই ১৪ বছরের কিশোরীকে অপহরণ করার পর জোর করে তাঁর ধর্ম পরিবর্তন করায় আর এরপর তাঁকে জোর করে বিয়েও করে!

পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, অষ্টম শ্রেণীতে পড়া হুমাকে ডেরা গাজি খানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তাঁর ধর্ম পরিবর্তন করে তাঁকে বিয়ে করার সমস্ত কাগজপত্র তাঁর মা বাবার কাছে পাঠিয়েও দিয়েছে অভিযুক্ত। বর্তমানে এই মামলা আদালতে আছে। পাকিস্তানের সাংবাদিক এই ব্যাপারে ট্যুইটও করেছেন।

এক আদালতে শুনানির সময় হুমার মা নাগিনা ইউনিস প্রশ্ন করেন যে, পাকিস্তানে অপহরণ আর ধর্ম পরিবর্তনই কি ভবিষ্যৎ? যদি তাই হয়, তাহলে সংখ্যালঘুদের মাতা-পিতাদের কি তাঁদের কন্যা সন্তানকে মেরে ফেলবে? হুমা ইউনিসের মা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খা, বিরোধী দলের নেতা বিলাবল ভুট্টো আর সেনা প্রধানের কাছে সাহাজ্যের আর্তি জানিয়েছে।

 

Related Articles

Back to top button