Press "Enter" to skip to content

শিবসেনার পতন শুরু মহারাষ্ট্রে! ৪০০ জন শিবসেনা সৈনিক যোগদান করলো বিজেপিতে।

শেয়ার করুন -

মহারাষ্ট্রে (Maharashtra) রাজনীতির দীর্ঘ লড়াইয়ের পর NCP, কংগ্রেস ও শিবসেনা সরকার গঠন করেছে। কিন্তু এখন কংগ্রেস, শিব সেনা  (Shiv Sena) ও NCP এর জোট বড়ো ঝটকা পেয়েছে। প্রায় ৪০০ জন শিবসেনা কর্মী বিজেপিতে যোগ দিয়েছে বলে জানা গেছে। বুধবার মুম্বাইয়ের (Mumbai) ধারাভি (Dharavi) -এ ভারতীয় জনতা পার্টিতে (বিজেপি) প্রায় ৪০০ জন শিবসেনা সৈনিক যোগদান করেছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, যে সব শিবসেনা কার্যকর্তা পার্টি ছেড়ে এসেছেন তার কংগ্রেস ও NCP এর কট্টর বিরোধী। নেতা চলে গেলেও নীতি বদলাবে না, এই আদর্শ নিয়ে শিব সেনার কার্যকর্তারা বিজেপিতে যোগদান করেছে।

আসলে শিব সেনার নীতির মধ্যে একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল কংগ্রেস মুক্ত ভারত। কিন্তু এখন উদ্ধব ঠাকরে সেই নীতি থেকে বাইরে গিয়ে কংগ্রেস ও NCP এর সাথে জোট করে সরকার গঠন করেছে। শিবসেনা জোট করলেও পার্টির মধ্যে থাকা বহু কার্যকর্তা এই পদক্ষেপ মেনে নিতে পারেনি। কংগ্রেসের সাথে জোট করার জন্য বহু শিবসেনা সৈনিক ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। এই ক্ষোভের কারণেই দলে দলে শিব সেনা ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন বহুজন।

জানিয়ে দি, নির্বাচনের আগে থেকেই মহারাষ্ট্র বিজেপি ও শিব সেনার জোট ছিল। যে জায়গায় বিজেপি দাঁড়িয়ে ছিল সেখানে শিব সেনা নির্বাচন লড়াই করেনি। একইভাবে যেখানে শিবসেনা নির্বাচনে নিজের প্রার্থী দাঁড় করিয়েছিল সেখানে বিজেপি নিজের প্রার্থী দাঁড় করাইনি। ফলে শিবসেনা বিজেপির ভোট পেয়েছিল এবং বিজেপি শিবসেনার ভোট পেয়েছে। মানুষও জোটের সরকার আসবে সেই হিসেবে ভোট প্রদান করেছিল। শুধু এই নয়, শিব সেনার পর্থীরা নিজেদের প্রচারে নরেন্দ্র মোদীর ছবি ব্যাবহার কলরেছিলেন।

জোটের চুক্তি অনুযায়ী, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে দেবেন্দ্র ফড়নবিষকে বসানোর সিদ্ধান্ত হয়েছিল। তবে নির্বাচনের ফলাফল সামনে আসতেই শিব সেবা দাবি করে যে মুখ্যমন্ত্রী পদ তাদের দিতে হবে। এতে রাজি হয়নি বিজেপি, এরপর শিবসেনা কংগ্রেস ও NCP মিলিতভাবে সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়।