নতুন খবরভারতবর্ষ

চলছে আগ্রা শহরের নাম পরিবর্তন করার প্রস্তুতি! তার মধ্যে আলীগড় শহরের নামও পাল্টে দিতে প্রস্তুত যোগী সরকার।

আরো একবার বিদেশী পরিচয় মুছে দেশীয় সংস্কৃতির উত্থানে নেমে পড়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী () । কোনো ডাকাত যদি কারোর বাড়িতে ঢুকে লুটপাট চালায় এবং বাড়ির জিনিস ছড়িয়ে ছিটিয়ে দেয়, তবে বাড়ির মালিক পুনরায় বাড়িকে আবার সাজানো চেষ্টা করে। সেইভাবে মুঘল আতঙ্কবাদীরা ভারত দেশকে লুটপাট করে তারপর বহু জায়গার নাম পরিবর্তন করেছিল। এখন সময় এসেছে আবার নিজের সংস্কৃতির পুনরুত্থান করা। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ দেশের সংস্কৃতির পরিবর্তনে সবথেকে বড়ো ভূমিকা পালন করছেন। উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের বড়ো শহরগুলির নাম যেগুলি মুঘলরা পরিবর্তন করেছিল, সেগুলির আবার নতুন নামকরণ শুরু হয়েছে।

যোগী আদিত্যনাথ এলাহাবাদের নাম পরিবর্তন করেছিলেন এবং তাঁর পুরানো নাম প্রয়াগরাজের নামকরণ করেছিলেন সরকারী নাম। এখন খবর আসছে ইউপি সরকার আগ্রার নাম পরিবর্তন করতে চলেছে। এর প্রস্তুতির জন্য, আগ্রার ডাঃ ভীমরাও আম্বেদকর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগকে আগ্রার নতুন নামের জন্য গবেষণা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এ তথ্য জানিয়েছে। উল্লেখযোগ্য যে প্রাচীন কালে যমুনার তীরে অবস্থিত আগ্রার নাম ছিল আগ্রাওয়ান এবং এখন আগ্রাকে আগ্রাওয়ান করার জন্য জল্পনা চলছে।

যখন থেকে ইউপিতে এটি ছড়িয়ে পড়েছে যে আগ্রার নাম পরিবর্তন হতে চলেছে, তখনই আলীগড়ের আলোচনায় আগুন লেগেছে। বিজেপির জনপ্রতিনিধিরাও আলীগড়ের নাম পরিবর্তনের বিষয়ে কথা শুরু করেছেন। লক্ষণীয় যে, কল্যাণ সিং, যিনি ১৯৯২ সালে ইউপির মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তার আমলে আলিগড়ের নাম পাল্টানোর চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু কেন্দ্রে কংগ্রেস সরকারের কারণে এই কাজ করা যায়নি। ২০১৫ সালে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ একটি রাজ্যব্যাপী সভার আয়োজন করেছিল এবং আলীগড়ের () নাম হরিগড় হওয়ার দাবিতে একটি প্রস্তাব পাস করেছিল।

বিজেপি সাংসদ সতীশ গৌতম আলীগড়ের নাম পরিবর্তন করে হরিগড় করার দাবি জানিয়েছিলেন, “অতীতে, আলীগড়কে এর আসল নাম হরিগড় দেওয়ার দাবি উত্থাপিত হয়েছিল। আলিগড়কেও সরকারী পর্যায়ে অবহিত করা হয়েছে হরিগড় নামটি সেখানেই থাকতে হবে। এলএ বিধায়ক সঞ্জীব রাজা বলেছিলেন যে শহরটি প্রাচীন কাল থেকেই হরিগড় নামে পরিচিত ছিল, তবে এটি মুঘল আমলে আলিগড় রূপান্তরিত হয়েছিল।

Back to top button
Close