Press "Enter" to skip to content

NRC রাজীব গান্ধী নিয়ে এসেছিলেন, তখন সেটা ঠিক ছিল কিন্তু এখন সোনিয়া গান্ধী বিরোধিতা করছে: অমিত শাহ।

শেয়ার করুন -

দেশজুড়ে NRC ও CAB নিয়ে বিতর্ক থামার নাম নিচ্ছে না, এই মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah) বড়ো বিবৃতি দিয়েছেন। নতুন নাগরিকত্ব আইন এবং জাতীয় নাগরিকত্ব নিবন্ধন (NRC) ইস্যুতে কিছু জায়গায় বিক্ষোভ চলছে। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। অমিত শাহ বলেছেন যে এনআরসি যখন রাজীব গান্ধীকে নিয়ে এসেছিল, তখন এটি ধর্মনিরপেক্ষ ছিল, এখন সোনিয়া গান্ধী এর বিরোধিতা করছেন। অমিত শাহ বলেন, “আমি এটা পরিষ্কার করে দি, যে এনআরসিতে ধর্মের ভিত্তিতে কোনও পদক্ষেপ হবে না। যারাই এনআরসি-র অধীনে এই দেশের নাগরিক হিসাবে পাওয়া যাবে না তাকে সরানো হবে। তাই এনআরসি কেবল মুসলমানদের জন্য এটা বলা ভুল বিষয়।

‘এজেন্ডা মিডিয়া 2019’ ইভেন্টে অতিথি হিসাবে অমিত শাহ বলেছিলেন, “দ্বিতীয় জিনিসটি এনআরসি কে এনেছিল? যারা প্রতিবাদ করছেন তাদের জিজ্ঞাসা করতে চাই কে এনেছে। আমি কংগ্রেস সভাপতি এবং গোলাম নবী আজাদকে জিজ্ঞাসা করতে চাই যে 1985 সালে আসাম চুক্তিটি সম্পাদিত হওয়ার পরে, এনআরসি প্রথমবারের জন্য গৃহীত হয়েছিল। শাহ বলেন, রাজীব গান্ধীর আমলে আইন তৈরি হয়েছিল তখন সেটা সেকুলার ছিল আর আমরা তা লাগু করলেই সাম্প্রদায়িক হয়ে যায়। ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে ৩ ডিসেম্বর ২০০৪ সালে ক্লজ ১৪ সংযুক্ত করা হয়েছিল। এটাও স্পষ্ট করে দি যে, তখন কংগ্রেস সরকার ক্ষমতায় ছিল।

এখন কংগ্রেস পার্টি তাদের নিজের তৈরি আইনকে প্রশ্ন বিদ্ধ করছে শুধুমাত্র ভোট ব্যাংকের রাজনীতির জন্য। শাহ বলেন, আইন কি সাজিয়ে রাখার জন্য তৈরি করা হয়েছিল? যদি প্রয়োজন ছিল না তাহলে কেন আইন তৈরি হয়েছিল? অমিত শাহ বলেন আসল সমস্যা তখন থেকে তৈরি হয়েছে যখন থেকে দেশের বিভাজন হয়েছে। শাহ বলেন, দেশ কখনোই ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজন হওয়া উচিত নয়। কিন্তু এটা কটু সত্য যে ভারত দেশ ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজন হয়েছে।

অমিত শাহ বলেছিলেন যে এতে বহু লোক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। ১৯৫০ সালে নেহেরু ও লিয়াকত আলী খানের মধ্যে চুক্তি হয়েছিল যে উভয় দেশ তাদের সংখ্যালঘুদের রক্ষা করবে। তার পর থেকে পরিসংখ্যানগুলি দেখুন, পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। যখন নেহেরু-লিয়াকত চুক্তি কার্যকর হয়নি। তখন CAA আইন পাশ করানোর প্ৰয়োজন ছিল।