Press "Enter" to skip to content

প্রয়াত হলেন পাকিস্তানের হাত থেকে সিয়াচেন বাঁচানো অদম্য সাহসের প্রতীক কর্নেল নরেন্দ্র বুল কুমার

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ বিশ্বের সর্বোচ্চ শিখরে ভারতীয় পতাকা উত্তোলন করা অদম্য সাহসের প্রতীক কর্নেল নরেন্দ্র ‘বুল” কুমার (Col Narendra ‘Bull’ Kumar) বৃহস্পতিবার ৮৭ বছর বয়সে প্রয়াত হন। ওনার রিপোর্টেই ভারতীয় সেনা ১৩ এপ্রিল ১৯৮৪ তে ‘অপারেশন মেঘদূত” চালিয়ে সিয়েচেনে কবজা বজায় রেখেছিল। এটাই বিশ্বের সবথেকে উঁচু যুদ্ধক্ষেত্রে প্রথম অপারেশন ছিল। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ওনার চলে যাওয়াকে অপূরণীয় ক্ষতি বলে বর্ণনা দিয়েছেন।

ভারতীয় সেনা ওনার প্রয়াত হওয়া খবর শেয়ার করে লেখে, ‘কর্নেল বুল এমন একজন সৈনিক মাউন্টেনিয়ার ছিলেন যিনি বহু প্রজন্মের জন্য অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবেন। আজ তিনি আর নেই, কিন্তু তিনি সাহস এবং উত্সর্গের গল্প রেখে গেছেন।” ১৯৩৩ সালে রাওয়ালপিন্ডিতে জন্মগ্রহণকারী কর্নেল বুল ১৯৫৩ সালে কুমার রেজিমেন্টে কমিশন পান। ওনার আরও তিন ভাই সেনায় ছিলেন। কর্নেল বুল ১৯৭৭ সালে সিয়াচেন গ্লেশিয়ারে পাকিস্তান কবজা করতে চাইছে সেই আন্দাজা করে ফেলেন। এরপর ওনার রিপোর্ট অনুযায়ী তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ভারতীয় সেনাকে অপারেশন মেঘদূত চালানোর অনুমতি দেন। এরপর ভারতীয় সেনা পাকিস্তানের পরিকল্পনায় জল ঢেলে সিয়াচেনে কবজা বজায় রাখে।

কর্নেল বুল নন্দাদেবী শিখরে পৌঁছান প্রথম ভারতীয় ছিলেন। এছাড়াও মাউন্ট এভারেস্ট, মাউন্ট ব্ল্যাক আর কাঞ্চনজঙ্ঘাতেও তিনি ভারতীয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। চার চারটি আঙুল খোয়ানর পরেও এই শৃঙ্গ গুলো জয় করেছিলেন তিনি। কর্নেল বুল ১৯৬৫ সালে ভারতের প্রথম এভারেস্ট টিমের উপ-প্রধান ছিলেন। ওনাকে পরম সেবা মেডেল, অতি বিশিষ্ট সেবা মেডেল আর কীর্তি চক্রর মতো সন্মান ছাড়া পদ্মশ্রী এবং অর্জুন পুরস্কার দিয়ে সন্মানিত করা হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কর্নেলের প্রয়াণে শোক প্রকাশ করেন। প্রধানমন্ত্রী ট্যুইট করে লেখে, ‘এটি একটি অপূরণীয় ক্ষতি। কর্নেল নরেন্দ্র বুল কুমার অসাধারণ সাহস আর পরিশ্রমের সাথে দেশের সেবা করেছেন। পাহাড়ের সাথে ওনার বিশেষ এক বন্ধন ছিল। ওনার পরিবার আর শুভচিন্তকদের প্রতি সমবেদনা। ওম শান্তি।”