Press "Enter" to skip to content

CAA আইনের সমর্থন করলেন কেরালার রাজ্যপাল আরিফ মহম্মদ খান। বললেন মোদী সরকার গান্ধীর পতিশ্রুতি পূরণ করেছেন।

শেয়ার করুন -

CAB বিল পাশ হয়ে এখন তা আইনে পরিণত হওয়ার পর এখন দেশজুড়ে বিতর্কের শেষ হচ্ছে না। CAA তে ধর্মের ভিত্তিতে ভেদাভেদ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দেশব্যাপী বিক্ষোভের মধ্যে কেরালার রাজ্যপাল আরিফ মোহাম্মদ খান (Arif Mohammad Khan) এটি সমর্থন করেছেন। তিনি বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার CAA-এর অধীনে মহাত্মা গান্ধী ও জওহরলাল নেহেরুর প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছে। পাকিস্তানে মর্মান্তিক জীবন যাপন করা লোকজনকে নেহেরু ও গান্ধী যে পতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তা মোদী পূরণ করেছেন। তিনি বলেন যে এই আইনের ভিত্তি 1985 এবং 2003 সালে স্থাপন করা হয়েছিল। মোদী সরকার কেবল এটি বৈধ করেছে।

আইনে মুসলিম শরণার্থী না পাওয়ার প্রশ্নে গভর্নর বলেছেন, পাকিস্তানকে মুসলিম দেশ হিসাবে তৈরি করা হয়েছিল। এমন পরিস্থিতিতে কি সেই লোকেরাও মুসলমানদের হয়রানি করবে? তিনি বলেছিলেন, “আমি বিশ্বাস করি যে মুসলমানরা পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে ভারতে এসেছিল তবে তারা নির্যাতনের কারণে নয়।” তারা এখানে এসেছিল অর্থনৈতিক সুযোগের সন্ধানে এসেছে।

নাগরিকত্ব সংশোধন আইনটি নিয়ে সারা দেশে বিক্ষোভ চলছে। অনেক রাজ্য কেন্দ্রের আনা এই আইন প্রয়োগ করতে অস্বীকার করেছে। এই নাগরিকত্ব আইনে পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সহ ৬টি অমুসলিম সম্প্রদায়ের শরণার্থীকে ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিধান রয়েছে। কিন্তু অনেকে দাবি করছেন যে, CAA আইনের আওতায় পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আগত রোহিঙ্গা, বাংলাদেশি মুসলিমদেরও নাগরিকত্ব দেওয়া হোক।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী CAA আইনের তীব্র বিরোধিতা করেছেন। অন্যদিকে বিহারের RJD নেতারাও এই আইনের বিরোধিতা করতে মাঠে নেমেছেন। CAA তে পাকিস্তান , বাংলাদেশ থেকে আগত হিন্দু, শিখ, জৈন, খ্রিষ্টানদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। অর্থাৎ যারা ধার্মিক কারণে এই ইসলামিক দেশগুলিতে নিপীড়িত শোষিত তথা অত্যাচারিত তারা ভারতে নাগরিকত্ব পাবেন। দেশে CAA নামে যে বিরোধ হচ্ছে তা মূলত NRC এর জন্য। আসলে একটা ভ্রান্তি মানুষের মধ্যে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে যে NRC এর জন্য মুসলিমদের কাছে ১৯৭১ সালের ডকুমেন্ট চাওয়া হবে।