নতুন খবরভারতবর্ষ

আজমের দরগাহ থেকে ট্রেন আনলেও, হরিদ্বারে ফেঁসে যাওয়া তীর্থযাত্রীদের ফেরাচ্ছে না মমতা!

 দেশে লকডাউনের কারণে অনেক পর্যটকই ভিন রাজ্যে গিয়ে আটকে আছেন। পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ৭০০ জন পর্যটক হরিদ্বারে ফেঁসে আছেন। যদি লকডাউন ৪.০ শুরু হয়ে যায়, তাহলে তাঁরা সেখানেই ফেঁসে থাকবেন। ওই পর্যটকেরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর (Mamata Banerjee) কাছে সেখান থেকে তাদের উদ্ধার করার জন্য কাতর আবেদন জানিয়েছেন। তাঁরা জানাচ্ছে, উত্তরাখণ্ডে (Uttarakhand) তাদের কোন সমস্যা নেই, কিন্তু এবার তাঁরা নিজের ঘরে ফিরে যেতে চাইছে।

হরিদ্বারে আটকে পড়া পর্যটকেরা নিজের বাড়ি ফিরতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর কাছে কাতর আবেদন করেছেন। তাদের এখন একটাই দাবি, যে করেই হোক মমতা ব্যানার্জী যেন তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। যদিও, উত্তরাখণ্ড প্রশাসনও তাদের বাড়ি ফেরানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।

গতকাল সোমবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ম্যারাথন বৈঠক চলে। ওই বৈঠকে বেশীরভাগ মুখ্যমন্ত্রীই লকডাউন বাড়ানর জন্য সহমত পোষণ করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী জানিয়েছেন, কেন্দ্র সরকারের উচিৎ যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোর সন্মান করা। আরেকদিকে, উত্তরাখণ্ড সরকার মমতা ব্যানার্জীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেছে যে, মমতা সরকার পর্যটকদের ফিরিয়ে নেওয়ার কোন ব্যবস্থা করেনি।

উত্তরাখণ্ডের মন্ত্রী মদন কৌশিক গতকাল রাতে একটি প্রেস কনফারেন্সে বলেন, রাজ্য সরকার পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দাদের ফেরত পাঠানোর জন্য অনেক চেষ্টা করছে। কিন্তু অফিসিয়ালি দিক থেকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছ থেকে কোন জবাব আসছে না। আমরা ওঁদের থাকা, খাওয়া আর চিকিৎসার সুবন্দোবস্ত করে দিয়েছি কিন্তু এবার ওঁরা ঘরে ফিরে যেতে চাইছে।

মমতা ব্যানারজী সোমবার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে করোনার সঙ্কটের মধ্যে রাজনীতি করার গুরুতর অভিযোগ করেছেন। উনি বলেছেন, কেন্দ্রকে উচিৎ এই সময় রাজনীতি না করা। কেন্দ্র সরকাররের উচিৎ সমস্ত রাজ্যকে এক চোখে দেখা আমাদের টিম ইন্ডিয়া রুপে একসাথে কাজ করা উচিৎ। যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোর সন্মান করা উচিৎ।

Related Articles

Back to top button