নতুন খবর

আমি মুসলিম হয়েও গণেশ পুজো করবো, কেউ আটকাটে পারবে না: কট্টরপন্থীদের জবাব দিলেন আর্শি খান

বিগ বস ১১-র প্রতিযোগী আরশি খান ও বিতর্কের অম্লমধুর সম্পর্ক।আদপে ভোপালের বাসিন্দা এই মডেল-অভিনেত্রী সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে গণেশ চতুর্থীর শুভেচ্ছা জানানোর পর উগ্রপন্থীদের আক্রমণের শিকার হয়েছেন। তিনি তাঁর ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে কিছু ছবিও শেয়ার করেছেন, যেখানে তাঁকে বেশ খোলামেলা পোশাকে দেখা যাচ্ছে। আরশি ক্যাপশনে লিখেছেন, “সবাইকে গণেশ চতুর্থীর শুভেচ্ছা। দুর্দান্ত পোশাক ডিজাইনিংয়ের জন্য স্নেহাকে ধন্যবাদ। ”

ছবি পোস্টের সঙ্গে সঙ্গে ধেয়ে এসেছে গোছা গোছা বিরূপ মন্তব্য। উগ্রবাদীরা কমেন্ট বক্সে তাঁকে ধর্মীয় পাঠ শিক্ষা দিতে শুরু করেছেন। নওশাদ খান নামের একজন ব্যবহারকারী টুইটারে লিখেছেন, ‘ম্যাডাম, এত নিচু হওয়া ভালো নয়। এটাই সবচেয়ে বড় পাপ। ”
অপর একজন বলেছেন,‌এভাবে নাটক করবেন না। আপনি ইচ্ছাকৃতভাবে এটি করছেন, যাতে আপনি ভারতে বাস করতে পারেন। হিন্দু সংস্কৃতিতে এই ধরনের অশ্লীল পোশাক পরে পূজা করা হয় না। দ্বিতীয়ত, ফটোশ্যুট এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার জন্য ঐশ্বরের উপর নির্ভর করবেন না। অনেকেই আবার কমেন্ট বক্সে ব্যঙ্গ করে ‘আস্তাগফিরুল্লাহ’ মন্তব্য করেছেন।

এই ট্রোলিংয়ের পরিপ্রেক্ষিতে আরশি খান রীতিমতো ক্ষুব্ধ এবং তিনি একটি ভিডিও শেয়ার করে ট্রলদের জবাব দিয়েছেন। আরশি বলেছে, যে সে ধর্মীয় ভেদাভেদ মানে না এবং সব ধর্মের উৎসব সে পালন করবে। ইনস্টাগ্রামে ভিডিও শেয়ার করে আরশি বলেন, ভারতে আমরা সব উৎসব আনন্দের সঙ্গে পালন করি। আমার হিন্দু বন্ধুরা আমার সাথে ঈদ উদযাপন করে এবং আমি তাদের সাথে গণপতি বাপ্পার পুজো করি এবং দীপাবলি উদযাপন করি। কিন্তু আমি গণপতি বাপ্পার পুজোর ছবি শেয়ার করতেই একদল আপত্তি করতে শুরু করলো।

তিনি একথাও বলেছেন, কিছু মানুষ মনে করে আমি এই সব প্রচারের জন্য করছি, আবার অনেকেই বলছে যে এটি কেবল আমার কাছে একটি উৎসব নয়, কিছু মানুষ আমার ধর্ম নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি ট্রলিংয়ের জবাব দিয়ে বলেছেন, যে আপনারা আমাকে শেখাতে হবে না কী করবেন এবং কী করবেন না। আমার যা খুশি তাই করবো। যদি কেউ আমার কমেন্ট বক্সে হিন্দু-মুসলিম ইস্যু তোলে তাহলে তাকে ইনস্টাগ্রামে ব্লক করে দেবো।

Related Articles

Back to top button