Press "Enter" to skip to content

যোগী আদিত্যনাথের দেখানোর পথে চললো কর্ণাটকের সরকার! দাঙ্গাবাজদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে ক্ষতিপূরণ নেবে ইয়েদুরাপ্পা সরকার।

শেয়ার করুন -

নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের বিরোধিতার নামে গত কয়েক দিন ধরে দেশের অনেক জায়গায় হিংস্র বিক্ষোভ চলছে। এসময় জনতা পুলিশ বাহিনীর বিভিন্ন স্থানে হামলা চালিয়ে তাদের আহত করার পাশাপাশি সরকারী ও বেসরকারী সম্পত্তির ব্যাপক ক্ষতি করে। এমন পরিস্থিতিতে উত্তর প্রদেশের যোগী সরকার এই প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নিয়েছিল তা অত্যন্ত কঠোর ছিল। যোগী আদিত্যনাথ পুরো দেশকে দেখিয়েছেন কিভাবে দাঙ্গাবাজদের নিয়ন্ত্রণ করতে হয়। এর সরকার উপদ্রবীদের উপর কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে। এখন পর্যন্ত পরিসংখ্যান অনুসারে, পুলিশ মোট 5558 জনকে আটক করেছে। এছাড়াও 925 জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ পর্যন্ত 213 টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। কানপুরের এসএসপি অনন্ত দেব জানান, একমাত্র কানপুরে ২১,৫০০ দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন থানায় ১৫ টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

শুধু এই নয়, যারা দাঙ্গা করেছে তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। সেই সম্পত্তি থেকে সরকারি ও প্রাইভেট ক্ষতির ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। যারা যারা দাঙ্গার সাথে জড়িত তাদের CCTV ক্যামেরায় চিহ্নিত করে বাড়িতে বাড়িতে নোটিস পাঠানো হচ্ছে। নোটিসে দাঙ্গাবাজদের কাউকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার, কাউকে ৩ লক্ষ ইত্যাদি হিসেবে সরকারি ফান্ডে টাকা জমার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। কারণ তারা সেই পরিমান অর্থের সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে। উত্তরপ্রদেশের মুজফরনগরে এখনও অবধি ৮০ টি দোকান সিজ করে দেওয়া হয়েছে।

এখন যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Aditya nath) এই পদ্ধতিকে অবলম্বন করতে শুরু করেছেন কর্ণাটকে ইয়েদুরাপ্পা সরকার (B. S. Yediyurappa)। কর্ণাটকের মাঙ্গালুরু শহরে হিংসার ঘটনা সামনে এসেছিল। মাঙ্গালুরু শহরেও কট্টরপন্থীরা প্রতিবাদের নামে উপদ্রব চালিয়ে ছিল। 19 শে ডিসেম্বর মাঙ্গালুরু শহরে যে উপদ্রব চালানো হয়েছিল তার উপর কর্ণাটক সরকার যোগী আদিত্যনাথের পদ্ধতি অবলম্বন করবে। কর্ণাটক সরকার উপদ্রবীদের থেকে সমস্থ ক্ষতির ক্ষতিপূরণ তুলবে।

 

কর্ণাটক সরকারের রাজস্ব মন্ত্রী আর অশোক এই বিষয়ে বলেছিলেন যে ‘সরকার শিগগিরই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।’ ১৯ ডিসেম্বর প্রতিবাদকারীদের ভিড় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়েছিল এবং মাঙ্গালুরু উত্তর থানায় অস্ত্র লুট করতে শুরু করে। এই ঘটনার পরে পুলিশ গুলি চালাতে বাধ্য করে, এতে দু’জন মারা যায়। যা নিয়ে কিছু সংবাদ মাধ্যম সরকারের উপর কড়া ভাষায় লেখা লেখি করেছিল।