Press "Enter" to skip to content

যারা সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করতে আসবে, তাঁদের দেখলেই গুলি করে দিনঃ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সুরেশ অঙ্গারি

শেয়ার করুন -

নাগরিকতা সংশোধন আইনের (CAA) বিরুদ্ধে পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চম দিনেও প্রদর্শন জারি রইল, আর প্রদর্শনকারীরা রাজ্যের অনেক জায়গায় রাস্তা আর রেল লাইন জ্যাম করে দেয়। আর এরই মধ্যে প্রতিবেশী রাজ্য অসমে মঙ্গলবার থেকে কারফিউ তুলে নেওয়া হয়। এছাড়াও শিলংয়ে মঙ্গলবার কারফিউতে ১৩ ঘণ্টার জন্য ছুট দেওয়া হয়। রাজ্যের ইন্টারনেট পরিষেবায় এখনো নিষেধাজ্ঞা জারি আছে। উত্তর প্রদেশ থেকে আজ কোথাও কোন হিংসার খবর পাওয়া যায়নি।

আরেকদিকে কেন্দ্রীয় রাষ্ট্র মন্ত্রী সুরেশ অঙ্গারি (Suresh Angadi) সরকারি সম্পত্তি ক্ষতি করা নিয়ে বড় বয়ান দিলেন। কেন্দ্রীয় রাষ্ট্র মন্ত্রী সুরেশ অঙ্গারি বলেন, ‘আমি কড়া ভাবে জেলা প্রশাসন আর রেলওয়ে আধিকারিক দের নির্দেশ দিচ্ছি যে, কেউ যদি রেল সমেত সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করে, তাহলে আমি একজন মন্ত্রী হিসেবে বলছি, তাঁদের দেখলেই গুলি করে দিন।”

উল্লেখ্য, নাগরিকতা সংশোধন আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নেমে শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গেই উপদ্রবিরা রেলের ১০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি করে দিয়েছে। তাঁরা শুধু রেলের সম্পত্তি জ্বালিয়েই থেমে থাকেনি। তাঁরা স্টেশন থেকে ইচ্ছে মতো টাকাও লুঠ করে নিয়ে গেছে। আরেকদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী এই ঘটনা গুলোকে ছোট ঘটনা আখ্যা দিয়ে ট্রেন বন্ধ করার জন্য কেন্দ্রের মোদী সরকারকে দোষ দিয়েছেন।

আরেকদিকে দেশের রাজধানী দিল্লীও রবিবার থেকে উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে। রবিবার শান্তিপূর্ণ প্রদর্শনের নামে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা জামিয়া এলাকায় হিংসাত্মক প্রদর্শন করে। এই প্রদর্শনে তিনটি সরকারি বাস আর একটি ফায়ার ব্রিগেডের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এছাড়াও রাস্তায় আম জনতার গাড়িতেও ভাঙচুর করা হয়। পুলিশ ছাত্রদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার পর পরিস্থিতি শান্ত হয়। কিন্তু এরপর জামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দিল্লী পুলিশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দরজায় কড়া নাড়া হয়। যদিও সুপ্রিম কোর্ট এই মামলা নিয়ে শুনানি করবেনা বলে জানিয়ে দিয়েছে। আর এই মামলা হাই কোর্টে পাঠিয়ে দিয়েছে।