নতুন খবরভারতবর্ষ

কড়া পদক্ষেপ নিয়ে তিন IPS অফিসারকে ডেপুটেশনে বদলির নির্দেশ দিল্লীর, অসম্মতি জানাল নবান্ন

নয়া দিল্লীঃ বিজেপির (Bharatiya Janata Party) সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার (Jp Nadda) উপর হা’ম’লা’র পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয় রাজ্যের তিন IPS অফিসারকে কেন্দ্রে ডেপুটেশনে বদলির আদেশ জারি করা হয়েছে। জানিয়ে দিই, বিজেপির সভাপতির গাড়ির উপর হা’ম’লা হওয়ার পরই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রালয় রাজ্যের ডিজিপি আর মুখ্য সচিবকে তলব করেছিল। আর এবার তিন আইপিএস অফিসারকে বাংলা থেকে দিল্লীতে ডেকে নেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, বিজেপির সভাপতি জেপি নাড্ডার কনভয়ে হা’ম’লা’র পর রাজ্যের রাজনৈতিক উত্তাপ চরমে। জেপি নাড্ডার বাংলার সফরের সময় বৃহস্পতিবার ওনার কনভয়ে ইট-পাথর দিয়ে হা’ম’লা করা হয়। নাড্ডা সমেত বিজেপির সমস্ত নেতারাই এই হামলার জন্য তৃণমূলকে দায়ি করেছে।

এরপর থেকেই রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এমনকি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ এই ঘটনার এক ঘণ্টা পর রাজ্যপালের কাছে বিস্তৃত রিপোর্ট চান। এরপর রাজ্যপাল রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছে রিপোর্ট পাঠান।

এরপর রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় গতকাল একটি প্রেস কনফারেন্স করেন। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee) সংবিধানের পালন করতে হবে। তিনি নিজের কর্তব্য পালন করার থেকে মুখ ঘুরিয়ে নিতে পারেন না। রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা অনেক দিন ধরেই খারাপ অবস্থায় পৌঁছেছে। রাজ্যপাল বলেন, ভারতের সংবিধানের রক্ষা করা আমার দায়িত্ব। যদি, মুখ্যমন্ত্রী নিজের দায়িত্ব না পালন করেন, তাহলে আমার ভূমিকা শুরু হবে।

প্রেস কনফারেন্সে রাজ্যপাল বলেন, ‘ভারতের সংবিধানের রক্ষা করা আমার দায়িত্ব। পশ্চিমবঙ্গের মানুষের রক্ষা করাও আমার কর্তব্য। রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা খুব খারাপ অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংবিধানের মর্যাদা রক্ষা করছেন না। মানবাধিকারের দিনে হওয়া হা’ম’লা মানবতার বিরুদ্ধে। কালকের হা’ম’লা গণতন্ত্রের মুখে কালি আর লজ্জাজনক। বাংলায় সংবিধানের মর্যাদা ভাঙছে। বাংলার পুলিশ প্রশাসন ব্যর্থ হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, গতকালের ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ক্ষমা চাওয়া উচিৎ। নিজের মন্তব্য ফেরত নেওয়া উচিৎ ওনার। বিজেপির সভাপতিকে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বয়ান খুবই দুর্ভাগ্যজনক। গণতন্ত্রে সবাইকে নিজের মত প্রকাশের জন্য অধিকার দেওয়া হয়েছে। বহিরাগত বলা সংবিধানের অপমান। সংবিধানের আত্মায় আর কত হা’ম’লা হবে?

তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করে বলছি তিনি যেন সংবিধানের পালন করেন। মুখ্যমন্ত্রী নিজের দায়িত্ব পালন না করলে আমার ভূমিকা শুরু হবে। ওনাকে সংবিধানের হিসেবে কাজ করা উচিৎ। বহিরাগত, ঘরের মানুষ বলা খুবই বিপজ্জনক খেলা। আমার আশা মুখ্যমন্ত্রী আমার কথা শুনবেন। গতকালের হা’ম’লা নিয়ে DCP কে রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে। আমি বাংলায় শান্তি চাই। এরকম প্রশাসনের কারণে আমার লজ্জা লাগে। এরকম ঘটনা গণতন্ত্রের হত্যা।

Related Articles

Back to top button