অপরাধনতুন খবর

PM রিলিফ ফান্ডের ভুয়ো ওয়েবসাইট বানিয়ে ৫২ লক্ষ টাকা লুট! নূর হাসান ও মোহাম্মদ ইফতেখার গ্রেফতার

গোটা দেশ বিশ্বব্যাপী মহামারী কোরোনা এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত থাকলেও এমন কিছু লোক আছেন যারা এই বিপর্যয়কে প্রতারণার মাধ্যম হিসাবে পরিণত করেছে। যারা মহামারীতে সরকারের সাহায্য করছে তাদের সাথেই প্রতারণা করতে নেমেছে কিছু দেশদ্রোহী। এমনই একটি ঘটনার খবর ঝাড়খণ্ডের হাজারীবাগ থেকে পাওয়া যাচ্ছে। এখানে কিছু লোক প্রধানমন্ত্রী কেয়ার রিলিফ ফান্ড ডটকম নামে একটি জাল ওয়েবসাইট তৈরি করে এবং অনুদানের জন্য আবেদন করে। এইভাবে তারা ৫২.৫৮ লক্ষ টাকা লুট করে নিয়েছে।

অভিযুক্ত দুই ভাই নূর হাসান ও মোহাম্মদ ইফতেখারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই পুরো গেমের মাস্টারমাইন্ড পলাতক রয়েছে। এই ব্যক্তিরা প্রধানমন্ত্রী কেয়ার রিলিফ ফান্ড ডটকম নামে একটি জাল ওয়েবসাইট তৈরি করেছিলেন। করোনার সংক্রমণ এবং লকডাউন থেকে ক্ষতিগ্রস্থদের রোধে সহায়তা করার জন্য দাতব্য প্রতিষ্ঠানের কাছে আবেদন করা হয়েছিল। ওয়েবসাইটে উল্লিখিত অ্যাকাউন্টে অ্যাকাউন্টধারীর নামও প্রধানমন্ত্রী কেয়ার হিসাবে লেখা ছিল।

হাজারীবাগ মুফতসিল থানা এলাকার লখিসের বাসিন্দা নূর হাসান ও মোহাম্মদ ইফতেখার (পিতা মোহাম্মদ সিরাজউদ্দিন) এবং ওড়িয়ার বাসিন্দা পারম্বর কুমার ১৩ জানুয়ারি পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের বড় বাজার শাখায় এবং ৩১ শে মার্চ ইউনিয়ন ব্যাংকের দুটি জাল অ্যাকাউন্ট খুলেছিলেন।

হাজারীবাগের ২০০ জন লোক পিএনবিতে ৩৪ লাখ ৮৭ হাজার এবং ইউনিয়ন ব্যাংকে ১৭ লাখ ৭০১ টাকা সহায়তা হিসাবে জমা করেছিলেন। ঠগগুলি এই টাকা গুলি বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করে নিত। ব্যাংকগুলি অন্যান্য অ্যাকাউন্টে প্রায়শই টাকা স্থানান্তর সম্পর্কে সন্দেহ করেছিল। পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক বড় বাজার শাখার ব্যবস্থাপক সুজিত কুমার সিংহ এবং ইউনিয়ন ব্যাংক শাখা অন্নদা চকের পরিচালক অমিত কুমার উভয় অ্যাকাউন্ট অনুসন্ধান করেছিলেন, উভয় অ্যাকাউন্টধারীরাই ভাই বলে প্রমাণিত হয়েছিল।

এর পরে, উভয় ব্যাংকের পরিচালকরা ৯ এপ্রিল সদর থানায় বিষয়টি জানান। পুলিশ এই অ্যাকাউন্টের আসল ধারকের ঠিকানায় গেলে প্রতারণার একটি ঘটনা প্রকাশ পায়। পুলিশ দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করে জেপি কারাগারে প্রেরণ করেছে।

Back to top button
Close