Press "Enter" to skip to content

মুসলিমদের কাছে ১৫০ টি বিকল্প আছে, হিন্দুদের জন্য শুধু ভারতঃ নিতিন গড়কড়ি

শেয়ার করুন -

নাগরিকতা আইন নিয়ে দেশ জুড়ে চলা বিরোধ প্রদর্শনের মধ্যে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিতিন গড়কড়ি (Nitin Gadkari) রবিবার মহারাষ্ট্রের নাগপুরে একটি জনসভায় অংশ নেন। নাগরিকতা সংশোধন আইনের সমর্থনে হওয়া এই সভায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিতিন গড়কড়ি বলেন, ‘হিন্দুত্ব কারোর বিরুদ্ধে না। CAA এর জন্য মুসলিমদের কোন বিপদ হবেনা। শুধু ভারতই হিন্দুদের শরণ দিতে পারে, ভারত সবাইকে আপন করে নিয়েছে।”

নিতিন গড়কড়ি আরও বলেন, ‘নাগরিকতা আইনের জন্য কোন ভারতীয় মুসলিমকে বিপদে পড়তে হবেনা। এই আইনে শুধু তিনটি প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ, আফগানিস্তান আর পাকিস্তান থেকে ধর্মের কারণে অত্যাচারিত হয়ে ভারতে এসে মাথা গোঁজা সংখ্যালঘুদের ঠাই দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। আমি আমার মুসলিম ভাইদের কাছে আবেদন করছি যে, কংগ্রেস বিভ্রান্ত মূলক অভিযান চালিয়ে আপনাদের ভুল বোঝাচ্ছে। আপনাদের তাঁরা শুধু ভোট ম্যাশিন হিসেবেই দেখছে।”

মোদী সরকারে কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী নিতিন গড়কড়ি বলেন, ভোট ব্যাঙ্কের রাজনীতির জন্য বিরোধী দল গুলো মুসলিমদের উসকানি দিচ্ছে তাঁদের মধ্যে ভ্রম ছড়ানো হচ্ছে, তাঁরা বলছে যে, ইসলাম খতরে মে হেয়। কিন্তু আসলে এরকম কিছুই না। নিতিন গড়কড়ি বলেন, ‘আমরা সালমা আর আদনান সামিকে ভারতের নাগরিকতা দিয়েছি। এই ঘটনা থেকেই বোঝা যায় যে, আমরা কারোর বিরোধী না।”

নিতিন গড়কড়ি বলেন, ‘সংবিধানে এটা লেখা আছে যে, পাকিস্তান আর আফগানিস্তানের হিন্দু, শিখ, জৈন, পারসি, ইসাই আর বৌদ্ধরা যদি ভারতে আসে তাহলে তাঁদের শরর্ণার্থী বলা হবে। আপনারা জানতে চাইবেন যে, কেন মুসলিমদের শরণার্থী বলা হয় না? ডঃ ভিম রাও আম্বেদকর সংবিধানে তাঁর কারণ স্পষ্ট লিখে দিয়েছে।”

নিতিন গড়কড়ি বলেন, পাকিস্তান আর বাংলাদেশ ইসলামিক রাষ্ট্র আর ১০০ থেকে ১৫০ এমন দেশ আছে যারা নিজেদের ইসলামিক রাষ্ট্র ঘোষণা করেছে। উনি বলেন, ডঃ আম্বেদকর সংবিধানে বলেছেন যে, যদি এই দেশের মুসলিমরা নিজেদের দেশ ছেড়ে দেয়, তাহলে তাঁদের কাছে ১০০ থেকে ১৫০ টি বিকল্প আছে। আর তাঁরা বিশ্বের যেকোন মুসলিম দেশে শরণ নিতে পারবে। কিন্তু হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি আর ইসাইদের জন্য কোন দেশ নেই। আমাদের দেশ সবাইকে আপন করে নেয়।”