নতুন খবর

Coronavirus: চীনে আটকে থাকা ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু! বিদেশমন্ত্রণালয় দিল তথ্য

করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) প্রভাবে পুরো চীন (China) বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। ভারত (India) বিশ্বের সমস্থ দেশগুলিও আতঙ্কিত রয়েছে। এই ভাইরাসের সরাসরি প্রভাব থেকে বাঁচতে অনেকে মাংস বা মাংস জাতীয় খাবার থেকে বিরত থাকার কথা বলেছেন। চীনের খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে অনেক ভারতীয়ও আটকে পড়েছেন। চীন থেকে ভারতীয় নাগরিকদের ভারতে ফিরিয়ে আনার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। বিদেশ মন্ত্রালয় টুইট করে জানিয়েছে যে ভারতের অনেক শহরে এই মামলা সামনে এসেছে। চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া কোরোনা ভাইরাস সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী সতর্কতা রয়েছে এবং ভারতও এর শিকার হচ্ছে। চীনে আটকা পড়ে থাকা ভারতীয় নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়ার জন্য ভারত সরকার কাজের গতি বাড়িয়ে দিয়েছে। মঙ্গলবার বিদেশ মন্ত্রালয় এক বিবৃতিতে বলেছে যে চীনে উপস্থিত ভারতীয়দের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ভারতে আনা হবে, প্রক্রিয়াও শুরু হয়ে গেছে।

বিদেশ মন্ত্রালয়ের মুখপাত্র রবিশ কুমারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে চীনের হুবেই প্রদেশে করোনার ভাইরাসে আক্রান্ত সমস্ত ভারতীয় নাগরিককে অপসারণের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। বেইজিংয়ে আমাদের দলটি চীন সরকারের সাথে যোগাযোগে রয়েছে এবং ভারতীয় নাগরিকদের আপডেট নিচ্ছে। আমরা এই বিষয়ে ধারাবাহিকভাবে আপডেট দিতে থাকব।

এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বোয়িং ৭৪৭ কে স্ট্যান্ডবাইতে রাখা হয়েছে, এবার সরকারের আদেশের পরে ভারতীয় নাগরিকদের বার করার প্রক্রিয়া শুরু করা যাবে। জানিয়ে দি চীনে প্রায় ২৫০ ভারতীয় শিক্ষার্থী আটকা হয়ে পড়েছে, যাদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে। লক্ষণীয় বিষয় হলো, গত এক সপ্তাহে কোরোনা ভাইরাস বিশ্বজুড়ে বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে। চীনে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসের কারণে শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছে, আর প্রায় হাজার হাজার মানুষ হাসপাতালে রয়েছেন।

 

চীনের হুবেই প্রদেশে আটকে পড়া ভারতীয় নাগরিকদের নিয়ে ভারোয় সরকার কিছু হাটলাইন বানিয়েছে, যার দ্বারা সাহায্য নেওয়া যেতে পারে। সরকার তিনটি হটলাইন নম্বর জারি করেছে, যদি কোনও ব্যক্তির পাসপোর্ট চীনা সরকারের কাছে জমা দেওয়া হয় তবে তারা এই নম্বরগুলিতে কল করতে এবং তৎক্ষণিকভাবে সহায়তা পেতে পারে।

শুধু চীন নয়, ভারতেও এমন অনেক সন্দেহভাজন ব্যক্তি চিহ্নিত হয়েছে যারা এই করোনার ভাইরাসে ভুগতে পারে। মুম্বই, বেঙ্গালুরু এবং দিল্লিসহ দেশে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে, যেগুলি এই করোনার ভাইরাসের সন্দেহ বলে মনে করা হচ্ছে। বাইরে থেকে আগত নাগরিকরা দেশের সমস্ত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলিতে তদন্ত করা হচ্ছে এবং যাচাই করার পরেই প্রবেশ দেওয়া হচ্ছে।

Back to top button
Close