Press "Enter" to skip to content

“প্রার্থী তালিকায় দেবাংশুকে রাখা উচিত ছিল”- আক্রোশ প্রকাশ তার সমর্থকদের

শেয়ার করুন -

তৃণমূলের হয়ে বক্তব্য রেখে প্রায়শই খবরের শিরোনামে উঠে আসা দেবাংশু ভট্টাচার্য আরো একবার আলোচ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছেন। তবে এবার কোনো বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য নয় বরং তৃণমূলের থেকে তাকে প্রার্থী না ঘোষণা করার কারণে। খুব কম সময়ের মধ্যে তৃণমূল সমর্থকদের মধ্যে বেশ ভালো প্রভাব ফেলে নিজের জায়গা করে নিয়েছেন দেবাংশু ভট্টাচার্য। তবে এখন সেই দেবাংশুকে টিকিট দেওয়া হয়নি বলে আক্রোশ প্রকাশ করতে শুরু করেছে দেবাংশু সমর্থকদের একাংশ।

এত খেটেও কেন দেবাংশু টিকিট পেল না সেই নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে তার বেশকিছু সমর্থক। দেবাংশুকে টিকিট না দিয়ে কেন টলিউড থেকে আসা নতুন মুখদের টিকিট দেওয়া হলো তাই নিয়েও উঠেছে প্রশ্ন। আর সমস্ত ক্ষোভ, আক্রোশ এখন উঠে আসছে সোশ্যাল মিডিয়ার দেওয়ালে।

রবিকুল ইসলাম নামের একজন সোশ্যাল মিডিয়া ইউজার লিখেছেন, “দিদি দেবাংশু দার নাম কোথায়।” সৌমেন চৌধুরী লিখেছেন, “দেবাংশু, সুদীপ, সুপ্রিয়, ত্রিনাকুর এদের কেউ নেই। ফালতু সায়নি, সায়ন্তিকাকে টিকিট দিচ্ছে। লজিক বুঝলাম না।’

উৎসব মন্ডল লিখেছেন, “যে ছেলেটা খেলা হবে স্লোগান দিয়ে বিপর্যস্ত কর্মীদের মধ্যে নতুন উদ্দীপনা যোগান দিলো, সে হয়ে গেলো বাচ্চা ছেলে, আর এইসব অপদার্থ সুযোগপিপাসু রাজ চক্রবর্তী, সায়নতিকা ব্যানার্জি, লাভলি মৈত্র, জুন মালিয়া, সায়নী ঘোষ, কৌশানি ব্যানার্জি প্রমুখের মতো টলি তারকারা আজ বিশাল বড়ো রাজনীতিবিদ হয়ে গেলো।।

দিদি এটা বুঝলেন না, এদের কিনে নেওয়া অনেক সোজা। কিন্তু দেবাঙশু, সুদীপ, সুপ্রিয়দের বয়স কম হলেও এদের কেনা যেতো না। এরা আপনাকে আর জোড়াফুলকে অন্তর থেকে ভালোবাসে, প্রতীক নিয়ে ব্যবসা করবে না কোনোদিনও।”

ধ্রুব ভৌমিক দেবাংশুর এক পোস্টে কমেন্ট করে লিখেছেন , “তোমার নামটা প্রার্থী তালিকায় থাকলে খুব খুশি হতাম ,কারন এই মুহূর্তে তোমার যা জনপ্রিয়তা ,তাতে তুমি বিনাপ্রচারে জিতে যেতে, এলাকার ক্ষুদেরাই তোমার হয়ে প্রচার করে দিতো , ২৯১ টি আসনে প্রচারের তীব্রতা আরও বেশি হতো , যদিও এটা আমার একান্তই ব্যক্তিগত মত।”

অনেকে অবশ্য দেবাংশুকে নিয়ে কটাক্ষও করেছেন। শুভজিত নাথ লিখেছেন, “একটা টিকিট পাওয়া ভাই তোর উচিত ছিল। এত গলা ফাটালি, এত ডিবেট শো করলি তাও পেলি না। খুব কষ্ট লাগলো।”