নতুন খবরপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

লোকসভায় বিজেপিকে পাঁচটার বেশি আসন জিততে দেব না, ভবিষ্যতবাণী করলেন দেবাংশু ভট্টাচার্য

কলকাতাঃ একুশের নির্বাচনে বাংলায় বিজেপিকে হারানোর পর আগামী লোকসভা ভোটের ক্ষেত্রেও যে অন্যতম প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। পরস্পর কেন্দ্র-রাজ্য সংঘর্ষ থেকেই তার কিছুটা আভাস মেলে। একুশের নির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে বিজেপিকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ করেছিলেন প্রশান্ত কিশোর। তিনি বলেছিলেন, এই বাংলায় একশোর বেশি আসন পাবে না বিজেপি। মিলে গিয়েছে তার ভবিষ্যৎ বাণী। শেষ পর্যন্ত বহু চেষ্টার পরেও মাত্র ৭৭ আসনেই থমকে গিয়েছে বিজেপির পরিবর্তন রথ। শুধু প্রশান্ত কিশোর নয় ভবিষ্যৎবাণী মিলেছিল আরেকজনেরও, তিনি তৃণমূলের অন্যতম স্টার ক্যাম্পেইনার দেবাংশু ভট্টাচার্য। সোজাসুজি দেবাংশু জানিয়েছিলেন, দু’শোর বেশি আসন নিয়ে ফের একবার ক্ষমতায় ফিরছেন মমতা। তার সেই ভবিষ্যৎবাণী মিলে গিয়েছে।

আর এবার ২০২৪ লোকসভা নির্বাচন নিয়েও বড় ভবিষ্যৎবাণী করলেন তৃণমূলের এই যুবনেতা। রবিবার বারাসাতে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, ‌‌”রাজ্যপাল হল বিজেপির মুখপাত্র। আলাদা করে ওনার নামটা নিতে চাইনা। ওনার নাম নিলে দিনটা খারাপ যায়। সত্যিকারের যদি বুকের পাটা থাকে তাহলে রাষ্ট্রপতি শাসন করে দেখাক। নরেন্দ্র মোদী বুঝতে পেরেছেন ২০২৪ সালে যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ হন তাহলে তিনি আর লালকেল্লায় ভাষণ দিতে পারবেন না। এই বাংলা থেকে বিজেপিকে পাঁচটার বেশি আসন নিতে দেব না।”

ইতিমধ্যেই রব উঠতে শুরু করেছে তৃণমূলের আগামী লক্ষ্য মিশন ২০২৪। সোজাসুজি এবার দিল্লিকে টার্গেট করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও তৃণমূলের মত আঞ্চলিক দলের পক্ষে দিল্লি এখনো অনেক দূর। কিন্তু ইতিমধ্যেই ত্রিপুরা সহ অন্যান্য রাজ্যগুলিতে ঘুটি সাজাতে শুরু করেছে তৃণমূল। জল্পনা তৈরি হয়েছে প্রশান্ত কিশোরের একাধিক মিটিং নিয়েও। অনেকেই বলছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিনিধি হয়ে আসলে অন্যান্য বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক করছেন প্রশান্ত। ইতিমধ্যেই এনসিপি’র প্রধান শরদ পাওয়ারকে তিনি একটি প্রেজেন্টেশনও দিয়েছেন বলে দাবি সূত্রের। যে প্রেজেন্টেশনের মূল কথা ছিল ”রোড ফর ২০২৪”। এখন দেবাংশুর মন্তব্য নিয়ে তাই স্বাভাবিকভাবেই জল্পনা তুঙ্গে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকেই মনে করছেন, আগামীদিনের লক্ষ্য মোটামুটি ঠিক করে ফেলেছে তৃণমূল। আর সেই কারণেই দলের অন্দরে একাধিক সাংগঠনিক পরিবর্তন করা হয়েছে ইতিমধ্যেই। শুধু তাই নয় সাংসদ এবং বিধায়কদেরও একাধিক নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এদিন বারাসাতে দেবাংশু মত একই সুরে বিজেপিকে বেঁধেন বিধায়ক চিরঞ্জিতও। তিনি বলেন “এই বাংলা বিভাজন চায়না। বিজেপি বিভাজন করতে চাইছে।” সুতরাং আগামী দিনে লোকসভাতেও প্রধান বিরোধী মুখ হিসেবে যে দাঁড়াবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই আভাস ক্রমশই স্পষ্ট হয়ে উঠছে দলীয় সূত্রে।

Related Articles

Back to top button