নতুন খবররাজনীতি

চলছে পশ্চিমবঙ্গে তিনটি বিধানসভায় উপনির্বাচন! জানা যাবে রাজ্যে বিজেপি এগিয়ে নাকি তৃণমূল!

আরো একবার নির্বাচনী ময়দানে মুখোমুখি বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেস। পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) তিনটি বিধানসভা আসনের জন্য অনুষ্ঠিত উপনির্বাচন ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস এবং বিজেপি এই প্রতিদ্বন্দ্বিতা শুরু হয়েছে। খড়গপুর, করিমপুর ও কালিয়াগঞ্জ এই তিনটি কেন্দ্রে উপনির্বাচনের লড়াই শুরু হয়েছে। দুই দলের জন্যেই এই নির্বাচন কঠিন চ্যালেঞ্জ হিসাবে প্রমাণিত হবে। সর্বশেষ লোকসভা নির্বাচনের পরে এই প্রথম দুই রাজনৈতিক দল নির্বাচনী অঙ্গনে একে অপরের মুখোমুখি হবে। উপনির্বাচনের যে তিনটি আসনের জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে সেগুলিতে তৃণমূল কংগ্রেস, বিজেপি এবং কংগ্রেসের আধিপত্য থেকেছে।

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির ভালো ফলাফল দেখার পর তৃণমূল কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে। কারণ বিজেপির শক্তি বৃদ্ধি হতে থাকলে তৃণমূলের ক্ষমতায় থাকা সম্ভব নয়। তৃণমূল আপাতত পশ্চিমবঙ্গে ভাষা বিদ্বেষের একটা দ্বন্দ তৈরি করে বিজেপিকে বাংলা বিরোধী দেখানোর চেষ্টা করছে বলে দাবি অনেকের। প্রশান্ত কিশোরের পরিকল্পনা অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে বাংলা ভাষা বনাম হিন্দি ভাষার দ্বন্দ, বিজেপিকে বাঙালি বিরোধী তকমা দেওয়া ইত্যাদির কাজ চলছে বলেও দাবি উঠেছে। অন্যদিকে বঙ্গ বিজেপি কেন্দ্র সরকারের কাজের ভিত্তিতে মানুষের কাছে ভোট চেয়েছে।

দিলীপ ঘোষ সাংসদ হওয়ার পর থেকে খড়গপুরের পদ খালি ছিল। একইভাবে মহুয়া মিত্র সাংসদ নির্বাচিত হওয়ায় করিমপুরের পদ খালি ছিল। কালিয়াগঞ্জের কংগ্রেস বিধায়কের মৃত্যুর ফলে ওই পদটিও খালি হয়ে পড়ে। তাই তিনটি পদের জন্য এখন সবথেকে বড়ো লড়াই শুরু হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি পার্টির মধ্যে। লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে ১৮ টি আসন দখল করেছিল। সেই থেকে প্রশান্ত কিশোরের নীতি মেনেই চলছে মমতা ব্যানার্জী ও তার দল।

Dilip Ghosh

একদিকে বিজেপি রাজ্যজুড়ে NRC লাগু করার কথা বলেছে। অন্যদিকে তৃণমূল NRC এর বিরোধিতা করে সামনে দাঁড়িয়ে পড়েছে।
লোকসভার সময়কালে পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক হিংসাও চরম রূপ নিয়েছিল। তৃণমূল এর দুর্নীতি ও রাজনৈতিক হিংসা করার কারণেই জনগণ বিজেপির দিকে ঝুঁকে পড়েছিল। এখন তৃণমূলের প্রতি জনগণের ঘৃণা অব্যাহত থাকবে কিনা সেটাই দেখার। ২০২১ এ বিধানসভা নির্বাচন তার আগে তিনটি বিধানসভা এলাকায় হওয়া এই উপনির্বাচন অনেককিছু বলে দেবে।

Related Articles

Back to top button