Press "Enter" to skip to content

গোধরা কাণ্ডের পুনরাবৃত্তি, মুর্শিদাবাদে পাঁচটি ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দিলো বিক্ষোভকারীরা! আতঙ্কে যাত্রীরা

শেয়ার করুন -

নাগরিকতা সংশোধন আইন (Citizenship Amendment Act) এর বিরোধিতায় জ্বলছে গোটা বাংলা। অসম এবং পূর্বের রাজ্য গুলোতে নাগরিকতা সংশোধন বিল (Citizenship Amendment Bill) নিয়ে কড়া আপত্তি থাকলেও বিক্ষোভকারীরা এতটা হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে পারেনি যতটা এরাজ্যের বিক্ষোভকারীরা করছে। রাজ্যে একের পর এক ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে, চরম অশান্তিতে ভুগছে নিত্যযাত্রী থেকে দূরপাল্লার যাত্রীরা। অন্যান্য রাজ্য গুলোতে অশান্তি না ছড়ানর জন্য রাজ্য সরকার আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছিল, কিন্তু এরাজ্যে সরকার শুধু মুখেই হুঁশিয়ারি দিয়ে চলেছে, কার্যকর কিছুই হচ্ছেনা। আর সেই জন্য আতঙ্কে গোটা বাংলার মানুষ।

গতকাল থেকেই গোটা বাংলার বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার অশান্তির ছবি ফুটে উঠেছে। কোথাও লুঙ্গি পড়া মানুষেরা স্টেশনে উঠে ভাঙচুর চালিয়ে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে, আবার কোথাও লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা আর চলন্ত ট্রেনে পাথর হামলা চালানো হয়েছে। এরকম হিংসক প্রতিবাদের ফলে আহত হয়েছেন অনেক নিরীহ যাত্রীরা। ট্রেনে হামলা চালানোর পর থেকেই এখন বাংলায় ট্রেনে করে ঢুকতে ভয় পাচ্ছে সবাই।

আরেকদিকে উলুবেড়িয়া এবং রাজ্যের অন্যান্য প্রান্তে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখায় অজস্র মানুষ। এমনকি গতকাল বিক্ষোভের জেরে একটি অ্যাম্বুলেন্সকেও আটকে দেওয়া হয়েছিল। এছাড়াও স্টেশনের টিকিট কাউন্টারে ঢুকে লুঠপাট চালানোর অভিযোগও ওঠে দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। আজ কোনা রোডে পরপর পাঁচ ছয়টি ট্রাক বাসেও আগুন ধরিয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা।

আর আজ মুর্শিদাবাদের কৃষ্ণপুরে পরপর পাঁচটি ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দিল বিক্ষোভকারীরা ২০০২ সালে যেমন ভাবে গুজরাটের গোধরাতে ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল দুষ্কৃতীরা, আজ ঠিক তেমন ভাবেই মুর্শিদাবাদের কৃষ্ণপুরে পাঁচটি ট্রেনে আগু  ধরিয়ে দিলো দুষ্কৃতীরা। তবে এই ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।