নতুন খবরভারতবর্ষ

পেট্রোলের মূল্যবৃদ্ধি থেকে দেশকে বাঁচাতে রাস্তা বের করল মোদী সরকার! দেশে দৌড়াবে Flex Fuel ইঞ্জিনের গাড়ি

পেট্রোল ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে হাঁসফাঁস করছে সাধারণ মানুষ। তেল উৎপাদক আরব দেশগুলি করোনা অতিমারীর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় আগের মত বেশী রফতানিতে আগ্রহ না দেখানোয় এই বিপত্তি। উপরন্তু এইরকম জ্বালানির থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমনের কারণেই বাড়ছে পৃথিবীর তাপমাত্রা, বদলে যাচ্ছে জলবায়ু, বিপন্ন হচ্ছে জীবকূল। এখন পেট্রোল ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি থেকে দেশকে বাঁচাতে বড়ো সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদী সরকার। সরকার ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যে ফেলক্স ফিউল ইঞ্জিনের উপর কাজ করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছে।

flex-fuel engines এর অর্থ এমন এক ইঞ্জিন যা পেট্রোল ডিজেলের বিকল্প কোনো জ্বালানিতে চলবে। পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গডকরি বলেছেন, বিকল্প জ্বালানির দাম ৬০-৬২ টাকা প্রতি লিটার হবে। এই ইঞ্জিনকে অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রিতে অনিবার্য করা হবে। বিকল্প জ্বালানিতে ইথানলের বড়ো ভূমিকা থাকবে বলে জানা গেছে। এর দরুন লিটার প্রতি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা বাঁচানো যাবে ।

নীতিন গডকরি বলেছেন, আমি পরিবহন মন্ত্রী হিসেবে দেশের অটো মোবাইল ইন্ডাস্ট্রিকে আদেশ জারি করবো যে কেবল মাত্র পেট্রোল ইঞ্জিন রাখলে হবে না। সেই সাথে ফেলক্স ফিউল ইঞ্জিন রাখতে হবে। পরিবহনমন্ত্রী জানিয়েছেন যে অটো মোবাইল ইন্ডাস্ট্রিতে flex-fuel engines অনিবার্য করতে হবে। তিনি আরো বলেন, কানাডা, ব্রাজিল, আমেরিকার মতো দেশ flex-fuel উৎপাদন করে যাতে তাদের অর্থনীতিতে বড়ো ধরনের বুস্ট পাওয়া যায়

প্রসঙ্গত, পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাস মন্ত্রক ২০১৮ সালে হিন্দুস্থান পেট্রোলিয়াম, ভারত পেট্রোলিয়ামের মত বিভিন্ন দেশীয় তেল উৎপাদক সংস্থার সাথে হাত মিলিয়ে দেশে প্রতি বছর তৈরি হওয়া ৬২ মিলিয়ন টন বর্জ্য পদার্থকে কাজে লাগাতে কম খরচে বিকল্প স্থায়ী পরিবহন প্রকল্প সংক্ষেপে ‘সাতাত’এর সূচনা করে। এই যোজনার ফলে একটি নতুন শিল্প গড়ে ওঠার ও বিপুল কর্মসংস্থানের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় ২০২৫ সালের মধ্যে দেশজুড়ে ৫০০০ বায়ো গ্যাস প্ল্যান্ট গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Back to top button