নতুন খবরভারতবর্ষ

Video: ১৭৭ বগির সুপার অ্যানাকোন্ডা মালগাড়িকে সর্বোচ্চ গতিতে ছুটিয়ে ইতিহাস গড়ল ভারতীয় রেল

নয়া দিল্লীঃ ভারতীয় রেল (Indian Railway) প্রথমবার ১৭৭ বগির মালগাড়ি বানিয়েছে। ওই ১৭৭ বগিতে এক কোটি টাকার কয়লা লোড করা হয়, জার ওজন ১৫ হাজার টন। সুপার অ্যানাকোন্ডা মালগাড়িকে (Super Anaconda Freight Train) রেলের সবথেকে ব্যস্ত রুটের মধ্যে একটি রাউরকেল্লা থেকে লাজকুরার মধ্যে চালানো হয়। ১২০ কিমির এই দূরত্ব সুপার অ্যানাকোন্ডা সোয়া দুই ঘণ্টায় পার করে ফেলে। এই রুটে অনেক টার্ন এবং চড়াই আছে, তা স্বত্বেও রেকর্ড সময়ে সুপার অ্যানাকোন্ডা নিজের লক্ষ্যে পৌঁছে যায়।

রেলওয়ে অনুযায়ী, তিনটি মালগাড়িকে একসাথে জুড়ে চালানো হয়েছে, এটি আমাদের কাছে একটি নতুন অভিজ্ঞতা। এরজন্য ৬ হাজার HP এর তিনটি ইঞ্জিনকে যুক্ত করা হয়। মালগাড়িতে মাল লোড করার আগে প্রথমে ১৭৭ টি খালি বগি নিয়ে ট্রায়াল দেওয়া হয়। স্বভাবত এরকম দূরত্ব নির্ধারণ করতে মালগাড়ির সাড়ে তিন ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু রেলওয়ের নতুন প্রয়াসে মাত্র সোয়া দুই ঘণ্টায় এই মালগাড়ি গন্তব্যস্থলে পৌঁছে যায়।

আরেকদিকে, ভারতীয় রেল (Indian Railways) এই লকডাউনে কামাল দেখায়। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে জারি করা লকডাউনের কারণে গোটা ভারতই ঘরে বন্দি ছিল। সবরকম কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। আর এই লকডাউনে ভারতীয় রেল দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকা কাজ সম্পূর্ণ করে ফেলল। উল্লেখ্য, লকডাউনের মধ্যে শিল্প, বাজার আর ব্যবসায়িক গতিবিধির মতই ট্রেনের চাকাও থেমে গেছিল। আর এই সময় ভারতীয় রেল দুর্যোগকে অবসরে বদলে দেওয়ার জন্য কোন ত্রুটি রাখেনি। রেলওয়ে এই লকডাউনের সদ্ব্যবহার করে ২০০ এর বেশি আটকে থাকা প্রকল্প সম্পূর্ণ করে ফেলেছে।

লকডাউনের মধ্যে রেল ট্রেনের সুরক্ষা, গতি আর রেল লাইন গুলোকে ডবল করার কাজ গুলো সম্পূর্ণ করে ফেলেছে। লকডাউনের সময় প্যাসেঞ্জার ট্রেন বন্ধ ছিল। ভারতীয় রেল এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে আর রক্ষণাবেক্ষনের সাথে যুক্ত কাজ গুলো লকডাউনের মধ্যেই সম্পূর্ণ করে ফেলে। রেলওয়ে পুরনো ব্রিজের মেরামতি, ইএলেক্ট্রিক লাইন করা আর ইয়ার্ড গুলোর রি-মডেলিং এর মতো পড়ে থেকে কাজ গুলোকে সম্পূর্ণ করে ফেলে।

ভারতীয় রেলকে অনেকবছর ধরে পড়ে থাকা অনেক প্রোজেক্টের কারণে নানান সমস্যার সন্মুখিন হতে হত। আর এই লকডাউনে ৮২ টি রেলওয়ে ব্রিজের মেরামতি করে ফেলে রেল। আরেকদিকে ৪৮ টি রোড আন্ডার ব্রিজ অথবা সাবওয়ে, ১৬ টি ফুট অভার ব্রিজের নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করা হয়। এছাড়া পুরনো ১৪ টি ফুট অভার ব্রিজকে সরিয়ে ফেলা হয়। ৭ টি রোড ওভার ব্রিজ আর ৫ টি ইয়ার্ডকে নতুন করে সাজানো হয়। আর রেল লাইন গুলোকে ডবল করা এবং যেখানে বৈদ্যুতিক ট্রেন চলেনা, সেখানে বৈদ্যুতিক লাইনের কাজ সম্পূর্ণ করা হয়েছে। এছাড়াও ২৬ টি অন্যান্য প্রকল্প গুলোকেও সম্পূর্ণ করা হয়েছে।

রেলওয়ে অনেক জায়গায় সিগন্যাল সিস্টেম আপডেট করেছে। শুধু তাই নয়, ভারতীয় রেল আর BHEL এর পাইলট প্রোজেক্টের পরীক্ষণও করা হয়েছে। এই প্রোজেক্ট অনুযায়ী, ট্রেন গুলোকে সৌর শক্তি দিয়ে চালানোর যোজনা আছে। জানিয়ে দিই, করোনার কারণে সমস্ত প্রয়োজনীয় বস্তুর যোগানের জন্য পার্সেল ট্রেন, মালগাড়ী ছাড়াও রেল শ্রমিক ট্রেন চালিয়েছিল।

Back to top button
Close