Press "Enter" to skip to content

JNU মামলার প্রতিবাদের নামে ফের আজাদ কাশ্মীরের দাবি করলো বামপন্থী ছাত্ররা!

শেয়ার করুন -

গতকাল JNU তে হওয়া সংঘর্ষের পর দেশের রাজনৈতিক মহলে চরম উত্তাপ ছড়িয়েছে। সমস্ত বিজেপি বিরোধী দল গুলো কেন্দ্রের মোদী সরকারের উপর তীব্র আক্রমণ করেছে। আরেকদিকে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে গতকালের JNU হামলাকে মুম্বাইয়ের ২৬/১১ হামলার সাথে তুলনা করেছেন। উনি বলেছেন, আমি টিভিতে দেখে এটাই বুঝলাম যে, এটা মুম্বাইয়ের হামলার মতই। উনি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন।

আরেকদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। উনি বিজেপি এবং কেন্দ্র সরকারের উপর আক্রমণ করে বলেছেন যে, ওঁরা সবার কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করছে। আমি এই হামলার তীব্র নিন্দা জানাই। এই হামলা ফ্যাসিস্ট সার্জিক্যাল স্ট্রাইক। আজ JNU তে হামলার প্রতিবাদের কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা ধিক্কার মিছিল বের করে। পাওয়া খবর অনুযায়ী, যাদবপুরের ছাত্রদের এই মিছিলে পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে।

আরেকদিকে বিজেপি সমস্ত বিরোধীদের আক্রমণ করে জানিয়েছে যে, এই ঘটনা নিয়ে তাঁরা অযথা রাজনীতি করছে। বিজেপি এই ঘটনার পিছনে কংগ্রেস, দিল্লীর শাসক দল আম আদমি পার্টি আর বাম সংগঠনের হাত আছে বলে জানিয়েছে। আরেকদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে আজ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছাত্ররা প্রতিবাদী মিছিল বের করে।

এইরকমই এক প্রতিবাদী মিছিল বের হয় মুম্বাইতে। সেখান ছাত্ররা ইন্ডিয়া গেটের সামনে বসে এই হামলার তীব্র নিন্দা জানায়। তবে এই প্রতিবাদে এক বিতর্কিত পোস্টার দেখতে পাওয়া যায়। ইন্ডিয়া গেটের সামনে এক ছাত্রীকে ‘আজাদ কাশ্মীর” এর পোস্টার হাতে দেখা যায়। যদিও পড়ে বিতর্ক বেড়ে যাওয়ার ভয়ে ওই ছাত্রীকে সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

আপনাদের জানিয়ে রাখি, এই আজাদ কাশ্মীরের স্লোগান তুলে এর আগে বহুবার বিতর্কে জড়িয়েছে JNU। এর আগে আজাদ কাশ্মীর আর ভারত বিরোধী স্লোগান দিয়ে শিরোনামে এসেছিল জওহর লাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়। আর আজ আবার প্রতিবাদের নামে আজাদ কাশ্মীর চেয়ে বসল বাম ছাত্র-ছাত্রীরা।