নতুন খবরভারতবর্ষ

মোদীর বিকল্প হিসেবে কেজরিওয়ালকে দেখছে জনতা, সেই ভয়ে GNCTD বিল আনা হলো: মনীষ সিসোদিয়া

লোকসভার পর এবার রাজ্যসভাতেও GNCTD বিল পাশ হয়েছে। বিল পাশ হওয়ার পর বিরোধী দলগুলি একত্র হয়ে কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণে নেমে পড়েছে। দিল্লীর উপ-মুখ্যমন্ত্রী মনীষ সিসোদিয়া বলেন, বিজেপির এই বিল পাশ করানো এটা প্রমাণ করে যে তারা কেজরিওয়াল সরকারের কাজের দরুন নিজেদের অসুরক্ষিত মনে করে। উনি আরো বলেন, “লোকজন বলা শুরু করে দিয়েছে যে অরবিন্দ কেজরিওয়াল নরেন্দ্র মোদীর বিকল্প হতে পারে। কেজরিওয়ালকে আটকানোর জন্য এই বিল আনা হয়েছে।”

মনীষ সিসোদিয়া আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদীর নেতিবাচক রাজনীতি করছেন। উনি অবশ্যই রাজনৈতিক জবাব পাবেন। আমরা আইনি বিশেষজ্ঞদের সাথে কথা বলছি এবং আমাদের বিকল্প বের করার চেষ্টা করছি। মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল একজন যোদ্ধা, লাগাতার ৬ বছর ধরে উনাকে টার্গেট করা হয়েছে তা সত্ত্বেও উনি সব পতিশ্রুতি পূরণ করেছেন যা যা মেনুফেস্টে বলা হয়েছে।

জানিয়ে দি, কেন্দ্র সরকার রাজ্য সভা ও লোকসভাতে GNCTD বিল পাশ করিয়েছে। এই বিল এলজিকে বিশেষ শক্তি প্রদান করবে। বিলে স্পষ্ট বলা হয়েছে যে দিল্লীতে সরকার মানে উপরাজ্যপাল। GNCTD বিল পাশ হওয়ার পর আম-আদমি-পার্টি কেন্দ্র সরকারের উপর আক্রমণ তীব্র করেছে। কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেসও আম-আদমি পার্টির সুরে সুর মিলিয়েছে। তৃণমূল নেতা ডেরেক ও-ব্রায়েন বলেছেন যে এই বিল এতটাই গুরুত্বপূর্ণ যে এটার বিরোধিতা করতে তিনি নির্বাচনী প্রচার ছেড়ে সদনে এসেছেন। এই বিল পাশ হওয়ার ফলে মুখ্যমন্ত্রীর শক্তি কম হয়ে যাবে বলে ধারণা বিরোধীদের।

রাজ্যসভা সাংসদ সুশীল গুপ্তা বলেন, কেজরিওয়াল নরেন্দ্র মোদীর বিকল্প হয়ে উঠেছে। কেজরিওয়ালের জনপ্রিয়তার ভয়ে বিজেপি এই বিল পাশ করিয়েছে বলে মত প্রকাশ করেন তিনি। দিল্লি মডেলকে আটকানোর জন্য ষড়যন্ত্র চলছে বলেও মন্তব্য করেন রাজ্যসভা সাংসদ।

Related Articles

Back to top button