নতুন খবরভারতবর্ষ

জম্মু-কাশ্মীরের বাচ্চাদের পড়াচ্ছে সেনা জওয়ানরা! ১৫ হাজার বাচ্চা পাচ্ছে সু-শিক্ষা।

সেনাবাহিনী জম্মু ও কাশ্মীরের ৪৩ টি গুড উইল স্কুল চালু করেছে। এর মধ্যে শিশুদের দেশপ্রেম শেখানো হয় যাতে তারা পাথর ছোঁড়ার মতো কার্যকলাপ থেকে দূরে থাকে। এর মধ্যে তিনটি সিবিএসই অনুমোদিত। এই তিনটি স্কুলের ফলাফল শতভাগ হয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীরের রাজৌরিতে বসবাসকারী হিত্তাম আইয়ুব ৯৪.২ শতাংশ নম্বর নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছেন। জম্মু ও কাশ্মীরের এই শুভেচ্ছামূলক বিদ্যালয়ে প্রায় 15,000 ছেলে মেয়ে পড়াশোনা করছে। সেনাবাহিনীর সহায়তার কারণে অস্থিরতার সময়েও উপত্যকার এই স্কুলগুলি উন্মুক্ত থাকে।

কেন্দ্র সরকার জম্মু-কাশ্মীরকে নতুন রূপ দেওয়ার জন্য লাগাতার কাজ করছে। জম্মু-কাশ্মীর থেকে যাতে বিচ্ছিন্নতাবাদী মানসিকতা দূর হয় তার জন্য নানা পরিকল্পনা করা হয়েছে। যার মধ্যে গুড উইল স্কুল খোলা একটা বড়ো পদক্ষেপ। জম্মু-কাশ্মীরের জনতার মধ্যে সাম্প্রদায়িকতার যে বীজ বুনে দেওয়া হয়েছে তা যেন আগামী প্রজন্মে না পৌঁছায় তার উপর কাজ চলছে। কাশ্মীরের মুসলিমদের মনে হিংসার বীজ বুনে দেওয়ার ফলেই সেখানের সুফি মতবাদ শেষ হয়ে কট্টর জেহাদি মানসিকতার সমাজ তৈরি হয়েছিল। যার ফলে ৯০ দশকে বহু হিন্দু নর নারীকে হিংসার মুখোমুখি হতে হয়েছিল। বহু কাশ্মীরি পন্ডিতকে পলায়ন করতে হয়েছিল।

সেই ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে এবং শান্তি বজায় থাকে তার উপর সরকার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। যারা বিচ্ছিন্নবাদী মানসিকতার জন্য নিজের দেশের সেনার উপর পাথর ছুঁড়ে তাদের সঠিক দিশা দেখানোর জন্য সরকারের জম্মু-কাশ্মীরে কর্মসংস্থান গড়ার কাজ চালাচ্ছে। জানিয়ে দি, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ধারা ৩৭০ অপসারণের সাথে সাথে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ এই দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরি করা হয়েছে। এতে দুই এলাকার প্রশাসনিক ক্ষমতা সরাসরি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের হাতে থাকছে।

Back to top button
Close