Press "Enter" to skip to content

মোদীর রাজ্যের কৃষকেরা বিদ্যুতের বিল দেয় না, উলটে বিদ্যুৎ বিক্রি করে কামাচ্ছে ডবল টাকা

শেয়ার করুন -

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) গোটা ভারতে ডিজিটাল যুগের সূচনা করার প্রচেষ্টায় লেগে আছেন। আর এই ডিজিটাল যুগের ফায়দা ভারতের কৃষকেরাও নিচ্ছে। বিশেষ করে ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দ্বারা শুরু করা সূর্য কিষাণ যোজনা (SKY) যেটা অনুযায়ী, ভারতে বেশি করে সোলার এনার্জি ব্যাবহার করার নিয়ম আছে আর ভারতের কৃষকদের এর জন্য বেশি করে উৎসাহিত দেওয়া হচ্ছে।

আপনাদের জানিয়ে রাকি, একটি সোলার প্ল্যান্ট লাগানোর জন্য ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়, কিন্তু গুজরাট সরকার আর কেন্দ্র সরকার দ্বারা SKY অনুযায়ী সোলার সিস্টেম লাগানোর জন্য ৭০ শতাংশ ছাড় দেওয়া হচ্ছে। চাশিরা সোলার প্ল্যান্ট লাগানোর জন্য প্রথমে কেবল মাত্র ৬০ হাজার টাকা দিচ্ছে, এমনকি এটাও না যে কৃষকেরা এই টাকা নিজের পকেট থেকে দিচ্ছে, কৃষকেরা সোলার প্ল্যান্টের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে অবশিষ্ট বিদ্যুৎ সরকারি এবং বেসরকারি বিদ্যুৎ কোম্পানি গুলোকে বিক্রি করে পয়সা তুলে নিচ্ছে।

আর এই প্রকল্পের সবথেকে বেশি ফায়দা তুলছে গুজরাটের কৃষকেরা। গুজরাটের ভদোদরা জেলার শিনা তালুকার মোটা ফালিয়া গ্রামের কৃষকেরা SKY এর অন্তর্গত নিজেদের কুয়ো গুলোকে সোলার কুয়ো বানিয়ে নিয়েছে, আর সোলার প্ল্যান্ট লাগিয়ে বিজলি উৎপাদন করছে। এখন তাঁরা বিনা কোন সমস্যায় নিজেদের জমিতে সেচের কাজ করতে পারছে, একসময় এমনও ছিল, যখন সেচের জন্য তাঁদের দীর্ঘ সময় বিদ্যুতের অপেক্ষা করতে হত।

SKY প্রকল্পের অন্তর্গত লাগানো সোলার সিস্টেম ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেড়শ কিমি দূরে গান্ধী নগরের সাথে যুক্ত। সেখানে কৃষকেরা কতটা বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে, সেটার তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সোলার সিস্টেম থেকে প্রতি মাসে আনুমানিক ৪ হাজার ওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন অয়। আর সেচের জন্য ২ হাজার ৫০০ ওয়াট বিদ্যুৎ খরচ হয়। সেচের পর ১ হাজার ৫০০ ওয়াট বিদ্যুৎ এমজিবিসিএল কে ৭ টাকা প্রতি ইউনিট বিক্রি করে কৃষকেরা দ্বিগুণ লাভ করছে।