নতুন খবরভারতবর্ষ

কেরলে পাঁচের বেশি সন্তানের জন্ম দিলেই মিলবে আর্থিক সহায়তা! ঘোষণা চার্চের

তিরুবনন্তপুরমঃ উত্তর প্রদেশ আর অসমে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ আইন লাগু নিয়ে যখন চর্চা হচ্ছে, তখন কেরলের একটি ক্যাথলিক চার্চ পাঁচ অথবা তাঁর বেশী সন্তানের জন্ম দেওয়া পরিবারের জন্য প্রকল্প শুরু করেছে। কেরলের কোট্টায়ম জেলার পালা-র চার্চ ঘোষণা করেছে যে, পাঁচের বেশী সন্তানের জন্ম দেওয়া পরিবারকে আর্থিক সাহায্য করা হবে। চার্চের তরফ থেকে বলা হয়েছে যে, ‘বাচ্চা ভগবানের দেওয়া অমূল্য একটি উপহার”, আর এই কারণেই তাঁরা পাঁচ সন্তানের অধিক মা-বাবাদের আর্থিক সহায়তা, বাচ্চাদের শিক্ষার দিক থেকে সহযোগিতা সহ অনেক সুবিধা দেবে।

চার্চের এই পদক্ষেপ রাজ্যে খ্রিষ্টান সম্প্রদাযয়ের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য একটি উত্সাহ হিসাবে দেখা হচ্ছে। সাইরো-মালাবার চার্চের পাল ডায়োসিসের পারিবারিক অ্যাপোসোলেট সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে ২০০০ সালের পরে বিবাহিত এবং পাঁচ বা তার বেশি বাচ্চা রয়েছে এমন দম্পতিদের মাসিক ১,৫০০ টাকা আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে।

পারিবারিক অ্যাপোসোলেট-র নেতৃত্বে থাকা ‘ফাদার” কুট্টিয়ানকল বলেন, ‘এই ঘোষণা গির্জাঘরের ইয়ার অফ দ্য ফ্যামিলি উৎসবে করা হয়েছে। এর উদ্দেশ্য হল করোনা কালের পর বড় পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দেওয়া। খুব শীঘ্রই এর আবেদন নেওয়া শুরু হবে, আর আগস্ট মাস থেকেই আমরা এই প্রকল্প চালু করতে পারব।”

বলে রাখি, উত্তর প্রদেশ, অসম আর বিহারে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য আইন আনা হচ্ছে। অসমের মুখ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যে ঘোষণা করেছেন যে, রাজ্যে দুইয়ের বেশী সন্তানের অভিভাবকরা সমস্ত রকম সরকারি প্রকল্প থেকে বাদ যাবেন। এমনকি তিনি এও জানিয়েছেন যে, দুইয়ের বেশী সন্তান থাকলে সরকারি চাকরিও মিলবে না।

অন্যদিকে, উত্তর প্রদেশে একদিকে যেমন দুইয়ের বেশী সন্তান থাকলে সরকারি প্রকল্প থেকে বঞ্চিত করার আইন আনা হচ্ছে, তেমনই আরেকদিকে দুইয়ের কম সন্তানের অভিভাবকদের উপরি সরকারি প্রকল্প, ঋণ দেওয়ারও নিদান দেওয়া হয়েছে। দেশের বর্ধিত জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য চারিদিকে যখন ভাবনা শুরু হয়েছে, তখন কেরলের চার্চের এমন এক ঘোষণায় বিতর্ক ছড়িয়েছে।

Related Articles

Back to top button