Press "Enter" to skip to content

আন্দোলনের নামে একের পর এক বাসে আগুন জ্বালিয়ে দিলো উৎপাতকারীরা, সমস্যায় ভুগছে সাধারণ মানুষ।

শেয়ার করুন -

রাজ্যসভায় CAB বিল পাশ হওয়ার পর থেকে কট্টরপন্থীরা দেশজুড়ে যে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে তা থামানোর নাম নিচ্ছে না। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে (West Bengal) ব্যাপকভাবে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। শুক্রবার দিন দুপুর থেকে কট্টরপন্থীরা আতঙ্কবাদীদের মতো ব্যাবহার করতে শুরু করে। চলন্ত ট্রেনে যাত্রীদের লক্ষ করে পাথর ছোড়া, এম্বুলেন্স ওর পথ আটক করে ভাঙচুর চালানো, স্টেশনে ভাঙচুর ইত্যাদি নানা অপরাধ মূলক কার্যকলাপ চালায় কট্টরপন্থীরা। উলুবেড়িয়ায় দূর পাল্লা ও লোকাল ট্রেন আটক করে ভাঙচুর চালানো হয়। বেলডাঙায় পুরো স্টেশন জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছাই করে দেওয়া হয়। তবে আতঙ্ক এখনও শেষ হয়নি। আজ সকাল থেকে কট্টরপন্থীরা CAB এর উপর প্রতিবাদ জানানোর অজুহাতে উপদ্রব শুরু করে দিয়েছে।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, হাওড়ায় গরফা ব্রিজের কাছে ৬ টি বাসকে ভাঙচুর করা হয়েছে। কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে ৬ টি বাসকে ভেঙে তাতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার খবর সামনে এসেছে। অন্যদিকে মুর্শিদাবাদের সুতিতে ৩ টি বাসকে ভাঙচুর করা হয়েছে। কাশ্মীরে যেভাবে পাথরবাজরা পাথর ছুঁড়ে সেই একই কায়দায় পুলিশদের উপর পাথর বৃষ্টি করা হয়েছে। কট্টরপন্থীদের উপদ্রবে বহু জায়গায় ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয়েছে। হাওড়া দক্ষিণপূর্ব শাখায় ট্রেন চলাচল ব্যাহত রয়েছে। সাকরাইলেও ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয়েছে।

শিয়ালদহ হাসনাবাদ শাখায় ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। রেল যাত্রীদের ভোগান্তির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হামিক বলেছেন এভাবে যেন অশান্তি না করে, কারণ এতে বিজেপি লাভবান হবে। যদিও বিজেপি CAB বিল ও NRC দুটির বিরোধ জানিয়েছে। পার্থ চ্যাটার্জী বলেছেন আমরা এই বিলের বিরুদ্ধে কিন্তু প্রতিবাদ শান্তিপূর্নভাবে দেখাতে হবে।

জানিয়ে দি,CAB বিল উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিল। কারোর নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার নিয়ে এতে কোনো কিছু বলা হয়নি। তা সত্ত্বেও কট্টরপন্থীরা দিকে দিকে বিরোধ দেখাতে, সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস করতে ও অশান্তি ছড়াতে মাঠে নেমে পড়েছে। শুক্রুবার দুপুর থেকে CAB বিলের প্রতিবাদ জানিয়ে ভিন্ন ভিন্ন এলাকায় অশান্তি করতে নেমে পড়ে। দেশের নানা প্রান্তে এই উৎপাত চললেও সবথেকে বেশি ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে পশ্চিবঙ্গ।