নতুন খবরভারতবর্ষ

‘মেক ইন ইন্ডিয়ার” সাফল্য, এই সেক্টরে রকেট গতিতে এগিয়ে চলছে ভারত

নয়া দিল্লিঃ ভারতকে আত্মনির্ভর করতে কেন্দ্র নিরন্তর অনেক পরিকল্পনা নিয়েই কাজ করছে। স্বদেশী কোম্পানিগুলোকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং স্বদেশী উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কেন্দ্র বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যার ফলাফলও এখন দৃশ্যমান।

রিপোর্ট অনুযায়ী, কেন্দ্র এখন স্বল্প-পাল্লার সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল এবং ভারতীয় কোস্ট গার্ডের জন্য ১৪টি হেলিকপ্টার কেনার সঙ্গে সম্পর্কিত বেশ কয়েকটি চুক্তি বাতিল করেছে। এই সিদ্ধান্তটিকে স্বদেশী প্রতিরক্ষা খাতের জন্য আত্মনির্ভর ভারতের জন্য নেওয়া একটি বড় পদক্ষেপ হিসাবে দেখা হচ্ছে।

প্রকৃতপক্ষে, ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রচারের জন্য নরেন্দ্র মোদী সরকারের চাপের সাথে সামঞ্জস্য রেখে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রক শুক্রবার ১৪টি স্বল্প দূরত্বের সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল এবং ১৪টি হেলিকপ্টার কেনার চুক্তির জন্য দরপত্র প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পাশাপাশি প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ‘বাই গ্লোবাল’ বিভাগের অধীনে সেই আমদানি চুক্তিগুলির পর্যালোচনা শুরু করেছে, যা সম্পূর্ণরূপে বিদেশী বিক্রেতাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। শুক্রবার নয়াদিল্লিতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের বৈঠকে এই বিষয়ে একটি বড় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদেশি বিক্রেতাদের সঙ্গে আমদানি চুক্তি পর্যালোচনা করতে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ উদ্যোগকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের সিরিজের বৈঠকের মধ্যে এটিই ছিল প্রথম বৈঠক। সরকার ইতিমধ্যে বিপুল সংখ্যক প্রতিরক্ষা আমদানি চুক্তি পর্যালোচনা করেছে এবং এখন বিদেশী প্রতিরক্ষা সংস্থার বদলে দেশীয় অস্ত্র এবং সরবরাহকারীদের দরপত্র দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ফোরক্লোজার এবং পিছিয়ে দেওয়ার তালিকার মধ্যে রয়েছে খুব স্বল্প দূরত্বের এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম, আর্টিলারি বন্দুক, উল্লম্বভাবে উৎক্ষেপণ করা সারফেস-টু-এয়ার মিসাইল, জাহাজবাহিত মনুষ্যবিহীন এরিয়াল সিস্টেম, MiG-29 যুদ্ধ বিমানের সাথে অতিরিক্ত P-8I নজরদারি বিমান। এর পাশাপাশি একটি মিসাইল চুক্তিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আপনাদের বলে দিই যে, সরকারের প্রচেষ্টার ফল আত্মনির্ভর ভারতকে সফল হতে দেদখা যাচ্ছে। ফিলিপাইন শুক্রবার ব্রাহ্মোস অ্যারোস্পেস প্রাইভেট লিমিটেডকে তাঁদের নৌবাহিনীর জন্য অ্যান্টিশিপ মিসাইল সিস্টেম অধিগ্রহণ প্রকল্প সরবরাহ করার দরপত্র প্রদান করেছে। এই চুক্তির মূল্য প্রায় ৩৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এই চুক্তির ফলেই বোঝা যাচ্ছে যে, মেক ইন ইন্ডিয়া কতটা সফল। তবে শুধু ফিলিপাইনই না, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশগুলোও এখন ভারতের থেকে প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম কেনার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

Related Articles

Back to top button