নতুন খবরভারতবর্ষ

৪০ দিন অবধি চলা টানা যুদ্ধ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে ভারতীয় সেনা! POK হারানোর আশঙ্কায় পাকিস্তান

ীয় সেনা () ধীরে ধীরে নিজের শক্তি এতটাই বৃদ্ধি করছে যে শত্রুরা শুধু নাম শুনেই পলায়ন করতে বাধ্য হবে। আসলে আর্থিক বিশেষজ্ঞদের মতে ২০৪০ অবধি নিজের অর্থব্যবস্থায় বড়ো পরিবর্তন আনতে সক্ষম হবে। সরকারও বিষয়টি বেশ ভালোমতো ধরে নিয়েছে। যার কারণে সমগ্রদিকে বিকাশ করার উপর জোর দিচ্ছে। এর মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো সামরিক শক্তির দিকে শক্তিশালী হওয়া। কারণ আর্থিক শক্তির সাথে সাথে সামরিক দিকে শক্তিশালী না হলে এক ঝটকায় সমস্ত প্রগতি নষ্ট হতে পারে। যার জন্য একের পর এক রকেট মিসাইল টেস্ট, আর্টিলারি গান মজবুত, নতুন যুদ্ধ বিমান তৈরির কাজে জোর দিচ্ছে।

২০২২-২৩ অবধি ভারত নিজেকে একটা আলাদা স্তরের সামরিক শক্তির হিসেবে দেখতে চাই। আপাতত রক্ষামন্ত্রক থেকে পাওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, সেনার জন্য আলাদা আলাদা অস্ত্র 10(I) স্তর অবধি পৌঁছে যাবে। তাৎপর্য এই যে, ১০ দিন ধরে চলা একটানা যুদ্ধের জন্য প্রয়োজনীয় স্টক মজুত থাকবে। এটা মূলত পশ্চিমের সীমার জন্য করা হলেও, পাকিস্তান ও চীন দুই দেশকেই গুরুত্ব দিয়ে স্টক রাখা হচ্ছে। বিষয়টি সামনে আসতেই পাকিস্তান নতুন করে POK নিয়ে ভাবনা চিন্তা শুরু করেছে। কারণ পাকিস্তানের ধারণা ভারত POK তে অপারেশন চালানোর জন্যেই সমস্থকিছু করছে।

সেনার মধ্যে যে সমস্ত প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাব ছিল তা পূরণ করে নেওয়া হয়েছে। প্রায় ১২৮৯০ কোটি টাকার ২৪ টি কন্ট্রাক্ট পাইপলাইনে রয়েছে। এর মধ্যে ১৯ টি কন্ট্রাক্ট বিদেশী কোম্পানির সাথে করা হয়েছে। সেনার পরবর্তী টার্গেট 40(I) হবে। অবশ্য এটিকে নিয়ে এখনও চিন্তা ভাবনা চলছে।

কারণ সব ধরনের অস্ত্র বেশি সংখ্যায় মজুত রেখে লাভ পাওয়া যায় না, যুদ্ধে সমস্থ অস্ত্র ব্যাবহার হয় না। আর এত বড়ো স্টককে ধরে রাখা আর্থিক ও ব্যাবহারিক কারণে সঠিক হয় না। রক্ষামন্ত্রণালয় অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টরি বোর্ডের অন্তর্গত আসা ফ্যাক্টরিগুলির সঞ্চালন ও কোয়ালিটি কোনট্রোলের উপর জোর দিয়েছে। যাতে যুদ্ধের ময়দানে অস্ত্রের গুণমান কোনো ভাবেই কম না হয়।

Back to top button
Close