আন্তর্জাতিকনতুন খবরভারতবর্ষ

বহু বছর ধরে রাজ করছিল চীন, এবার এই মহাদেশে ড্রাগনদের হটিয়ে আধিপত্য বিস্তার ভারতের

নয়া দিল্লিঃ ভারত ও চীন বিশ্বের ৫টি বৃহত্তম অর্থনীতির মধ্যে রয়েছে। উভয় দেশই ১৯৯০-র দশক থেকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য তাদের দৌড় শুরু করে। তবে, পশ্চিম দেশগুলি প্রকাশ্যে সমর্থন করায় চীন ভারতকে ছাড়িয়ে গিয়েছে। কিন্তু অর্থনৈতিক শক্তি থাকা সত্ত্বেও যখন সফট পাওয়ারের কথা আসে, অর্থাৎ কূটনৈতিক শক্তি প্রদর্শনের ক্ষেত্রে, তখন ভারত চীনের চেয়ে অনেক এগিয়ে থাকে। আর এর প্রত্যক্ষ উদাহরণ হল আফ্রিকা।

খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ আফ্রিকা মহাদেশে চীনের ভালো প্রভাব থাকলেও আফ্রিকার দেশগুলোতে চীনের ভাবমূর্তি ভালো নয়। এর একটি বড় কারণ চীনের ঋণ ফাঁদ নীতি (DBT), যার কারণে আফ্রিকার দেশগুলিতে চীন পরিচালিত অবকাঠামো প্রকল্পগুলি এই দেশগুলির গলার হাড় হয়ে উঠেছে। এ কারণে চীন লাখো চেষ্টা করেও আঞ্চলিক শক্তিতে নিজের ভাবমূর্তি উন্নত করতে পারছে না। পাশাপাশি ভারতের কথা বললে, ভারত সামাজিক পরিস্থিতির উন্নতির জন্য এই অঞ্চলে অনেকগুলি প্রকল্প পরিচালনা করেছে, যার মধ্যে স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলির একটি বড় অংশ রয়েছে। এই কারণেই চীনকে লোভী পুঁজিবাদী দেশ হিসেবে দেখা হয়, অন্যদিকে ভারতকে দেখা হয় মিত্র হিসেবে।

এক কথায় চীন একটি লোভী পুঁজিবাদী দেশ, যাদের শুধুমাত্র চিন্তা হল আফ্রিকায় বিনিয়োগ যেন তাঁদের সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে পারে। আফ্রিকার দেশগুলির সাহায্য করা নিয়ে চীনের কোনও মাথাব্যথা নেই, বা আফ্রিকার দেশগুলি অর্থনৈতিক উন্নতি করতে এবং দারিদ্র্য ও ক্ষুধা সমস্যার অবসান ঘটানো নিয়েও তাঁদের ইচ্ছা নেই। এ কারণেই আফ্রিকার দেশগুলোতে চীনের চেয়ে ভারতকে বেশি নির্ভরযোগ্য মিত্র ও বিকল্প হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

আফ্রিকা মহাদেশে চীন ও ভারতের মধ্যে চলমান প্রতিযোগিতার বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে, ভারতের প্রাক্তন কূটনীতিক এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আফ্রিকান বিষয়ক বিভাগের সহ-সচিব নরিন্দর চৌহান ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস-এ একটি নিবন্ধ লিখেছেন। অনার মতে, “আফ্রিকান মানুষের দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, টিভি এবং রাস্তাঘাট চীনাদের তৈরি। আফ্রিকার সরকারগুলো স্বেচ্ছায় চীন থেকে ঋণ গ্রহণ করেছিল, কারণ বিনিময়ে কোনো জবাবদিহির প্রয়োজন ছিল না। আফ্রিকার নেতারা নাগরিকদের রাস্তা, বন্দর এবং রেলপথের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনে জয়ী হতে পারেন।”

তিনি আরও বলেছেন, “তবে, শ্রমিকদের অবস্থা, বিচ্ছিন্ন পরিবেশগত নীতি (যা পরিবেশের ক্ষতি করছে) এবং চীনা কোম্পানির জন্য সৃষ্ট চাকরি স্থানচ্যুতির কারণে ট্রেড ইউনিয়ন এবং সুশীল সমাজ দ্বারা  চীনের সঙ্গে থাকা অর্থনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে সমালোচনা করা হচ্ছে। এটাও উঠে এসেছে যে, চীন আফ্রিকান সরকারের দুর্বলতার সুযোগ নিচ্ছে, এর ফলে দুর্নীতি বেড়ে চলেছে।” বলে দিই অ্যাঙ্গোলা, ঘানা, গাম্বিয়া ও কেনিয়ায় দিন দিন চীনের সমালোচনা বাড়ছে।

এটি লক্ষণীয় যে, গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গোর পরিস্থিতি আরও খারাপ। সম্প্রতি ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কীভাবে চীন আফ্রিকার এই দেশ থেকে কয়েক মিলিয়ন ডলার লুট করেছে। কঙ্গোর প্রেসিডেন্ট জোসেফ কাবিলার নামসহ অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এই তালিকায় রয়েছেন যারা চীনের অর্থনৈতিক অনিয়ম প্রচারে কাজ করেছেন।

অন্যদিকে, সামাজিক কাজে ভারতের অংশগ্রহণ আফ্রিকায় ভারতের অবস্থানকে শক্তিশালী করেছে। ভারত সরকার আফ্রিকার সামাজিক কাঠামোর উন্নতি করতে সচেষ্ট। নরিন্দর চৌহান আরও লিখেছেন,  “অবকাঠামো নির্মাণ এবং প্রাকৃতিক সম্পদ লুণ্ঠনের দিকে মনোনিবেশ চীনের বিপরীতে, ভারত তার ১১ বিলিয়ন ডলারের বেশি বিনিয়োগের মাধ্যমে মানবসম্পদ উন্নয়ন, তথ্য প্রযুক্তি, সামুদ্রিক নিরাপত্তা, শিক্ষায় অবদান রেখেছে এবং এর মূল দক্ষতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে।”

এখানেই চীন ও ভারতের মধ্যে পার্থক্য দেখা যায়। চীন অবকাঠামোগত উন্নয়ন থেকে অর্থনৈতিক লাভ অর্জন এবং তার ভূ-রাজনৈতিক আকাঙ্খা পূরণের দিকে মনোনিবেশ করেছে। যেখানে ভারত আফ্রিকার অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সামাজিক উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। বেল্ট অ্যান্ড রোড প্ল্যানের (BRI) অধীনে, বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে তার লোকদের আফ্রিকায় শ্রমিক হিসাবে মোতায়েন করার এবং নিজেদের কোম্পানিগুলিকে সম্পূর্ণ প্রকল্প দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। আফ্রিকার জনগণের কর্মদক্ষতা বাড়ানোর ওপর জোর না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে চীনের বিরুদ্ধে।

কঙ্গোর মতো দেশে ক্রমবর্ধমান চীন বিরোধী হাওয়া ভারতের জন্য উপকারী প্রমাণিত হবে। এই কারণেই ভারত আফ্রিকার দেশগুলির সাথে তার অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার করার দিকে মনোনিবেশ করছে। ২০১০-১১ সালে ভারত ও আফ্রিকার মধ্যে বাণিজ্য প্রায় ৫২ বিলিয়ন ডলারের ছিল, যা ২০১৯-২০ এ বেড়ে প্রায় ৬৭ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে আফ্রিকা থেকে ভারতে রপ্তানিও বেড়েছে ৫ বিলিয়ন ডলার।

বলে দিই যে, ভারতের মোট আমদানিতে আফ্রিকার অংশিদারিত্ব ৮ শতাংশ রয়েছে, যেখানে আফ্রিকার আমদানিতে ভারতের অংশ ৯ শতাংশ। ভারত ও আফ্রিকার মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক যত মজবুত হবে এবং আফ্রিকার দেশগুলো যত ভারতকে শক্তিশালী বিকল্প হিসেবে দেখা হবে, ততই আফ্রিকার সঙ্গে চীনের প্রাসঙ্গিকতা শেষ হয়ে যাবে।

Related Articles

Back to top button