টাকা পয়সানতুন খবরব্যবসা

মাসে মাত্র ৬০০ টাকা বিনিয়োগ করে পেয়ে যান ১০ কোটি, সুবর্ণ সুযোগ দিচ্ছে এই স্কিম

নয়া দিল্লিঃ সকলেরই ইচ্ছে থাকে জীবনে কোটিপতি হওয়ার! অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ্যে জীবন কাটাতে চান সকলেই। তবে, সঠিক কিছু প্ল্যান এবং ঠিকমতো বিনিয়োগ করলেই কিন্তু কোটিপতি হওয়া খুব একটা কঠিন ব্যাপার নয়!

আপনি যদি সঠিক সময়ে নিয়মিত সঞ্চয় শুরু করেন, তাহলে এক কোটি নয়, ১০ কোটি টাকা পর্যন্ত পুঁজি করা অত্যন্ত সহজ। যদি আগামী সময়ে আর্থিকভাবে শক্তিশালী হতে চান, তাহলে আজ থেকেই সামান্য পরিমাণ হলেও বিনিয়োগ শুরু করুন। এভাবে প্রতিদিনের অল্প পরিমাণ সঞ্চয়ও আপনাকে বয়সের শেষভাগে ধনী করে তুলতে পারে।

আপনি যদি প্রতিদিন ২০ টাকা অর্থাৎ মাসে ৬০০ টাকা বিনিয়োগ করেন, তাহলে ৬০ বছর বয়সে আপনি ১০ কোটি টাকার মালিক হতে পারেন। অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই কিন্তু বাস্তব। বর্তমান প্রতিবেদনে জেনে নিন কিভাবে খুব সহজেই আপনি কোটিপতি হয়ে উঠতে পারেন!

প্রতি মাসে ৬০০ টাকা বিনিয়োগ করে ১০ কোটি টাকার মূল্যের জন্য আপনাকে মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে হবে। এতে আপনাকে নিয়মিত বিনিয়োগের জন্য SIP নিতে হবে। আপনি প্রতি মাসে ৫০০ টাকা দিয়ে SIP-তে বিনিয়োগ শুরু করতে পারেন। কিন্তু এক্ষেত্রে আপনাকে দৈনিক ২০ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। অর্থাৎ, প্রতি মাসে ৬০০ টাকার SIP নিতে হবে। পাশাপাশি, ২০ বছর বয়সেই এই বিনিয়োগ শুরু করতে হবে।

মিউচুয়াল ফান্ড গত কয়েক বছরে চমৎকার রিটার্ন দিচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে ১২ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত রিটার্ন পাওয়া গিয়েছে। আপনি যদি প্রতি মাসে ৬০০ টাকার মিউচুয়াল ফান্ডে SIP করেন, তাহলে আপনি ৪০ বছরে ১০ কোটি টাকার লক্ষ্য অর্জন করতে পারেন। আপনাকে মোট ৪০ বছরের জন্য এই বিনিয়োগ চালিয়ে যেতে হবে। অর্থাৎ, ৪৮০ মাসের জন্য, প্রতি মাসে ৬০০ টাকার একটি SIP করতে হবে।

আপনি যদি ৪০ বছরের জন্য মাসিক ৬০০ টাকা বিনিয়োগ করেন, তাহলে সেক্ষেত্রে ১৫% বার্ষিক রিটার্নে ১.৮৮ কোটি টাকা পাবেন। এই সময়ে আপনি মোট ২.৮৮ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করবেন। এখন আপনি যদি এই SIP-তে ২০% বার্ষিক রিটার্ন পান, তাহলে ৪০ বছরে আপনি মোট ১০.২১ কোটি টাকার রিটার্ন পাবেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিনিয়োগকারীরা মিউচুয়াল ফান্ডে চক্রবৃদ্ধির সুবিধা পান। এছাড়াও, এটিতে প্রতি মাসে বিনিয়োগ করার সুবিধাও রয়েছে। এই কারণেই আপনি অল্প পরিমাণ বিনিয়োগের মাধ্যমে বেশি অর্থ পাওয়ার আশা করতে পারেন। তবে, যেকোনো ক্ষেত্রেই বিনিয়োগের আগে প্রথমে কোনো বিশেষজ্ঞের সাথে অবশ্যই যোগাযোগ করে নেবেন।

Related Articles

Back to top button