Press "Enter" to skip to content

JNU এর ছাত্রছাত্রীরা রাজি নয় ১০ টাকার বেশি হোস্টেল ফি দিতে! কিন্তু দেশের ইকোনমি নিয়ে ভাষণ দিতে সর্বদা এগিয়ে!

শেয়ার করুন -

JNU আবারও খবরের শিরোনামে চলে এসেছে। JNU মূলত ভারত বিরোধী শ্লোগানবাজির জন্য খবরের শিরোনামে টিকে থাকে। সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায় JNU এর ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনা করে। থাকা, খাওয়া দাওয়া ইত্যাদির খরচ প্রায় দিতে হয় না বললেই চলে। কিন্তু তা সত্ত্বেও লজ্জাজনকভাবে সেখান থেকে ভারত বিরোধী শ্লোগানবাজি শোনা যায়। যা ভারতের মান মর্যাদাকে খুবই গুরুতরভাবে আহত করে। JNU তে ছাত্র ছাত্রীদের থাকার ফিস সামান্য বৃদ্ধি করা নিয়ে এখন আবার নতুন উৎপাত শুরু হয়েছে।

বর্তমান হার অনুসারে, JNU ছাত্রদের একক শয়নকক্ষের জন্য মাসিক ভাড়া ১০০ টাকা, ডাবল বেড রুমের ভাড়া প্রতি মাসে মাত্র ২০ টাকা দিতে হয়। সরকার এই টাকা বৃদ্ধি করে ১০০-৩০০ টাকা করতে চেয়েছিল। যারপর JNU এর ছাত্রছাত্রীরা দিল্লীর রাস্তায় নেমে ব্যাপকভাবে আন্দোল করে। এরপর কিছু সাধারণ মানুষ এই ঘটনার উপর তাদের পতিক্রয়া জানিয়ে আক্রোশ প্ৰকাশ করেছে। কিছুজন বলেছেন দিল্লীতে থাকতে হলে যেকোনো মানুষকে কমপক্ষে মাসিক ৫ হাজার টাকা ভাড়া দিতে হয়।

সে জায়গায় JUN এর আধবুড়ো ছাত্র ছাত্রীরা ১০ টাকা, ২০ টাকা দিয়ে সেখানে বছরের পর বছর পড়ে থাকে এবং রাজনীতি করে। কেন সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায় আধবুড়ো তথাকথিত ছাত্র ছাত্রীদের ফ্রীতে থাকা, খাওয়া দেওয়া হবে তাই নিয়ে প্রশ্নঃ তুলেছেন অনেকে। কেউ কেউ বলেছেন যারা হোস্টেল মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে পথে নেমে আন্দোলন করেছে তারা সকলেই ৩০-৩৫ বছর বয়স্ক। কিভাবে ৩০-৩৫ বছর অবধি কেউ ছাত্র হয়ে থাকতে পারে তা নিয়েও প্রশ্নঃ উঠেছে। JNU তে পড়াশোনার থেকে রাজনীতি বেশি হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে। ছাত্র ছাত্রীরা ১০ টাকা, ২০ টাকা দিয়ে থেকে কেন দেশের অর্থব্যাবস্থা নিয়ে ভাষণ দেবে তার উপরেও প্রশ্নঃ খাঁড়া হয়েছে।