আন্তর্জাতিকনতুন খবর

গুজরাটের জুনাগড়কে পাকিস্তানে দেখতে করতে চায় প্রাক্তন নবাব, ভয়ে পালিয়েছিল দেশ ছেড়ে

নয়া দিল্লিঃ আঞ্চলিক সুরক্ষার বিপদ আর সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষক পাকিস্তান নিজেদের কুকীর্তি বন্ধ করার নাম নিচ্ছে না। পাকিস্তানের কুখ্যাত গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই কাশ্মীর ইস্যুতে থাপ্পড় খাওয়ার পর এবার গুজরাটের জুনাগড় (Junagadh) নিয়ে নাচনকোঁদন শুরু করেছে। আর এরজন্য তাঁরা জুনাগড়ের তথাকথিত প্রাক্তন নবাবের বংশধর মোহম্মদ জাহাঙ্গীর খানকে হাতিয়ার করেছে। প্রাক্তন নবাব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে আবেদন করে বলেছেন যে, তিনি যে বিশ্ব মঞ্চে কাশ্মীর ইস্যুর মতো জুনাগড় ইস্যুও তুলে ধরেন।

রেডিও পাকিস্তানের খবর অনুযায়ী, ‘মোহম্মদ জাহাঙ্গীর খান নিজে এই বিষয়ে বয়ান জারি করেছেন। মোহম্মদ জাহাঙ্গীর খান বলেছেন, ভারত আর পাকিস্তানকে এখন জুনাগাড় ইস্যু নিয়ে চর্চা করা উচিৎ। পাকিস্তান সরকারকে জুনাগড় ইস্যুকে ততটাই সক্রিয় ভাবে বিশ্ব মঞ্চে তুলতে হবে, যতটা সক্রিয় ভাবে তাঁরা কাশ্মীর ইস্যুকে তুলে ধরে।”

তথাকথিত নবাব বলেছেন যে, ‘জুনাগড় পাকিস্তানের অংশ। আর জুনাগড়কে পাকিস্তানে অন্তর্ভুক্ত করার স্বপ্ন আমাদের পূর্বপুরুষ মোহম্মদ আলী জিন্নাহ আর জুনাগড়ের প্রাক্তন নবাব মোহাব্বত খান দেখেছিলেন। পাকিস্তানকে জুনাগড় ইস্যু নিয়ে বিশ্ব মঞ্চে আওয়াজ তোলার সময় এসে গিয়েছে। ওখানে জবরদখল আন্তর্জাতিক আইনের বিরুদ্ধে।”

উল্লেখ্য, এর আগে পাকিস্তান দেশের নতুন রাজনৈতিক নকশা জারি করেছিল। ওই নকশার মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে যেই অঞ্চলগুলি নিয়ে বিবাদ রয়েছে, সেগুলিতে নিজেদের দাবি পেশ করাই ছিল তাঁদের লক্ষ্য। কিন্তু অবাক করা বিষয় হল পাকিস্তান সিয়াচেন, কাশ্মীরের সঙ্গে সঙ্গে গুজরাটের বিস্তীর্ণ এলাকাকে নিজের বলে দাবি করেছিল। বলে দিই, জুনাগড় ১৯৪৮ সালে জনমত সংগ্রহের পর ভারতের সাথে যুক্ত হয়েছিল, আর এখন পাকিস্তান সেই জুনাগড়কে নিজেদের বলে দাবি করছে।

প্রসঙ্গত, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সরদার বল্লভ ভাই প্যাটেল দেশের ৫০০-র বেশি সাম্রাজ্যকে ভারতের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। সেই সময় জুনাগড়ের নবাব পাকিস্তানের সঙ্গে যাওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন। এরপর জুনাগড়ের নবাব পরিবার জিন্নাহর সঙ্গে চুক্তি করে পাকিস্তান পালিয়ে যায়। জুনাগড়ের ওই নবাবের নাম ছিল মোহম্মদ মোহাব্বত খান (তৃতীয় রসুল খান)। জুনাগড়ের প্রাক্তন নবাবের বংশধররা এখন পাকিস্তানেই থাকেন আর তাঁরা একজন চাপরাসির থেকেও কম বেতন পান। কিন্তু এখন তাঁরা জুনাগড়কে পাকিস্তানের সঙ্গে বিলয় করার স্বপ্ন দেখছেন।

Related Articles

Back to top button