নতুন খবর

ধর্ষণকান্ড নিয়ে যখন আক্রোশে দেশ, তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী তখন ব্যাস্ত ছিলেন হাই প্রোফাইল বিয়েবাড়ির অনুষ্ঠানে।

হায়দ্রাবাদের ডঃ প্রীতি রেড্ডির (নাম পরিবর্তিত) গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় সরকার ও পুলিশ-প্রশাসন জনগণের ক্ষোভের মুখোমুখি হচ্ছে। ডাঃ রেড্ডির পরিবারও রাজ্য সরকারের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। ডাক্তার রেড্ডির মা এবং বোন এখনও কথা বলার মতো অবস্থানে নেই। কাকা মিডিয়ার সামনে এসে তার বক্তব্য রাখেন। ভেঙে পড়া অবস্থায় কাকা অভিযোগ করেছেন যে মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও এই পরিবারকে শোক ব্যাক্ত করার সময় পর্যন্ত পাইনি। তিনি বলেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী এখনও অবধি পরিবারের খোঁজ খবর নেননি।

জানা যাচ্ছে, ডঃ রেড্ডির ধর্ষণকান্ড নিয়ে যখন পুরো দেশ উত্তাল ছিল তখন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও (K. Chandrashekar Rao) এক হাই প্রোফাইল বিয়েতে ব্যাস্ত ছিলেন। বিধায়ক নায়েকের ছেলের বিয়েতে তিনি পুরো মন্ত্রিসভার সাথে উপস্থিত ছিলেন এবং অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন। ধর্ষণকান্ড নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী না মুখ খুললেও ওই রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মেহমুদ আলী বিবৃতি দিয়েছিলেন। মেহমুদ আলী ধর্ষণকাণ্ডের দায় উল্টে ডঃ রেড্ডির উপরেই চাপিয়ে দিয়েছিলেন।

ডাঃ রেড্ডির কাকা নির্ভয়া ধর্ষণ মামলার কথা স্মরণ করে বলেন যে সেই সময় মোমবাতি মার্চও বের করা হয়েছিল এবং জনগণের ক্ষোভ পুরোদমে ছিল কিন্তু এখনও পর্যন্ত কিছুই পরিবর্তন হয়নি। তিনি বলেন যে তিনি বিশ্বাস করেন না যে তার ভাইজি আর এই পৃথিবীতে নেই।

ডাঃ রেড্ডি সম্পর্কে বলতে গিয়ে তার কাকা বলেন, যে এটি প্রাণীর প্রতি তাঁর ভালবাসা যে তিনি পশু চিকিৎসক হয়েছিলেন। শৈশব থেকেই ডঃ রেড্ডি পশুর প্রতি অনুরাগী ছিলেন। মেডিকেল পরীক্ষায়ও তাঁর ভাল পদ ছিল। প্রীতি রেড্ডির বাবা অন্য কোথাও চাকরি করেন। তিনি উইকএন্ডে পরিবারে আসতেন। তিনি ৮ মাস পরে অবসর নিতে চলেছেন। তিনি অবসর গ্রহণের পরে পরিবারের সাথে সুখের জীবন কাটাতে চেয়েছিলেন, তবে এই আকস্মিক ঘটনাটি পরিবারকে কাঁপিয়ে দিয়েছে।

Related Articles

Back to top button