নতুন খবরভারতবর্ষ

“ধৰ্ম পরিবর্তন করো নাহলে এলাকা ছাড়ো”- পলায়নের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে ১০ টি হিন্দু পরিবার

পূর্ববঙ্গের হিন্দুদের একসময় ইসলামিক আগ্রাসনের শিকার হয়ে ওপার বাংলা থেকে ভিটেমাটি ছেড়ে বাধ্য হয়ে এপার বাংলায় চলে আসতে হয়েছিল। তার ফলশ্রুতিতে ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছে নোয়াখালী গণহত্যার মতো বেশ কয়েকটি হিন্দু গণহত্যা।

 ২০১৪ সালে এক‌ই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটেছিল উত্তর প্রদেশের কৈরানা এবং কান্ধলা প্রদেশে যা কৈরানা হিন্দু পলায়ন নামেও পরিচিত। বিজেপি নেতা হুকুম সিং কৈরানা থেকে চলে আসা ৩৪৬টি হিন্দু পরিবারের একটি তালিকা প্রকাশ করেছিলেন।

কৈরানার ছায়া এবার দেখা গেল উত্তর প্রদেশের কানপুরে, যেখানে হিন্দু পরিবারগুলি হয় হয় ইসলাম গ্রহণ করতে বাধ্য হয়েছে না তো ভিটেমাটি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছে।  হিন্দু পরিবারগুলি স্থানীয় মুসলিম রুফিয়ানদের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার জন্য হুমকি দেওয়া, ভয় দেখানো এবং জোর করে ধর্মান্তরকরণের অভিযোগ করেছে।

জানা গেছে, ঘটনাটি  কানপুর জেলার কর্নেলগঞ্জ থানাধীন রেলপাত্রী এলাকার। যেখানে মাত্র ১০ টি হিন্দু পরিবার বাস করে। তাদের অভিযোগ যে তারা মুসলিম প্রতিবেশীদের দ্বারা প্রতিনিয়ত নির্যাতনের শিকার।  গত সপ্তাহে শনিবার সন্ধ্যায়, স্থানীয় হিন্দুদের দ্বারা একটি হিন্দু পরিবারের একটি মেয়েকে শ্লীলতাহানি করার চেষ্টা করা হয় এবং যখন মেয়েটির ভাই তাদের মুখোমুখি হয়, তখন গুন্ডারা তাদের বাড়িতে প্রবেশ ঢুকে পড়ে এবং পরিবারের সদস্যদের উপর অত্যাচার করে।  অভিযোগ এও যে, মেয়েটিকে যৌন নির্যাতনেরও চেষ্টা করা হয়েছিল।

এই ঘটনার পর, ওই হিন্দু পরিবারের সদস্যরা  স্থানীয় থানায় এসে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করে।  ৯ জন পরিচিত এবং ৩ জন অপরিচিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।  পুলিশ এই মামলায় ৩ জন সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করে।  তবে ভুক্তভোগী ওই পরিবারের দাবি, এর মধ্যে ২ জনকে ইতিমধ্যে পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে।

এদিকে, এলাকার  হিন্দু পরিবারগুলির বাড়ির বাইরের দেওয়ালে “বাড়ি বিক্রির” সাইনবোর্ড টাঙানো রয়েছে। অভিযোগ,  মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এই এলাকায় ইসলামিক গুন্ডাদের হাতে অত্যাচারের শিকার হয়ে বাড়ি বিক্রি করে শহরে নিরাপদ আশ্রয়ে পালানোর ইচ্ছা থেকেই তারা এই বিজ্ঞাপন দিয়েছে। স্থানীয় হিন্দুরা জানিয়েছে, তাদের দুটো শর্ত দেওয়া হয়েছে হয় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতে হবে নয়তো বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে হবে। তাই তারা ভিটেমাটি বিক্রি করে পলায়নের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

কানুপুরের পুলিশ কমিশনার অসীম অরুণ এক বিবৃতি জারি করেছেন, যে তারা হিন্দুদের ধর্মান্তরিত হওয়ার হুমকি পেয়েছে।  তিনি জানিয়েছিলেন যে মেয়েটির শ্লীলতাহানির মামলায় ইতিমধ্যে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।বিষয়টি তদন্তের জন্য পুলিশ দায়িত্ব নিয়েছে এবং এফআইআর অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অসীম অরুণ আরও বলেছেন, কাউকে যদি আর এই কাজ করতে দেখা যায়, তাদের বিরুদ্ধে NSA এবং গ্যাংস্টার আইনের আওতায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button