নতুন খবরভারতবর্ষরাজনীতি

খালিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন কেজরিওয়াল, বললেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গী

নয়া দিল্লিঃ ২০ ফেব্রুয়ারি পাঞ্জাবে বিধানসভার নির্বাচন হতে চলেছে । ভোটের আগে পাঞ্জাবে রাজনীতি তুঙ্গে। অন্যদিকে, আম আদমি পার্টির প্রাক্তন নেতা ও বিধায়ক কবি কুমার বিশ্বাস AAP প্রধান তথা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন।

কুমার বিশ্বাস বলেছেন, অরবিন্দ কেজরিওয়াল পাঞ্জাবের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সমর্থক ছিলেন। “একদিন, তিনি আমাকে বলেছিলেন যে, তিনি হয় পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী বা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র খালিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হবেন।”

কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বোঝা উচিত যে পাঞ্জাব শুধু একটি রাজ্য নয়, এটি একটি অনুভূতি। আমি আগেই তাকে বলেছিলাম বিচ্ছিন্নতাবাদী ও খালিস্তানি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত লোকদের না নিতে। তাই কেজরিওয়াল আমাকে বলেছিলেন না-না সব ঠিক হয়ে যাবে। কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘আমি তাকে বলেছিলাম যে এই যে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন রয়েছে, খালিস্তানি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত লোকেরা, তাদের সঙ্গে নেবেন না, তিনি আমাকে পাল্টা বলেছিলেন যে, এটা হবে না! চিন্তা করবেন না।’

কুমার বিশ্বাসের দাবি, ‘একদিন তিনি আমাকে বলেন, তুমি চিন্তা করো না, আমি স্বাধীন রাজ্যের মন্ত্রী হব। আমি বললাম এটা বিচ্ছিন্নতাবাদ। ২০২০ সালের গণভোট আসছে, পুরো বিশ্ব অর্থায়ন করছে। এরপর তিনি বলেছিলেন, তো কি হয়েছে! আমি স্বাধীন দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হব। এই মানুষটির চিন্তায় অনেক বিচ্ছিন্নতা আছে। উনি শুধু কোনোভাবে ক্ষমতা চান।”

উল্লেখনীয়, ২০১২ সালে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্না আন্দোলনের সময় কবি কুমার বিশ্বাস এবং অরবিন্দ কেজরিওয়াল কাছাকাছি এসেছিলেন। আন্না আন্দোলনের অবসানের পর যখন আম আদমি পার্টি গঠিত হয়, তখন কুমার বিশ্বাস ছিলেন দলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। দল গঠনের পর কেজরিওয়াল ও কুমার বিশ্বাসের বন্ধুত্ব আরও দৃঢ় হয়ে ওঠে। তবে, দিল্লিতে ক্ষমতায় AAP সরকার গঠনের পর কুমার বিশ্বাস এবং অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি শুরু হয়।

শুধু তাই নয়, কিছুদিন পর আম আদমি পার্টি থেকে নিজেকে পুরোপুরি দূরে সরিয়ে নেন কুমার বিশ্বাস। কুমার বিশ্বাস, যিনি কেজরিওয়ালের সঙ্গে মতবিরোধের কারণে AAP থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়েহচিলেন। তিনি গত কয়েক বছর ধরে আম আদমি পার্টি সরকারের অনেক নীতির সমালোচনা করে আসছেন।

Related Articles

Back to top button