নতুন খবরপশ্চিমবঙ্গ

প্রকাশ্যে এলো সবথেকে বড় সমীক্ষার রিপোর্ট, গেরুয়া ঝড়ের অপেক্ষায় বঙ্গবাসী

কলকাতাঃ আর মাত্র তিনদিন, তারপরই রাজ্যে প্রথম দফার নির্বাচন। প্রথম দফায় মোট ৩০ টি আসনে নির্বাচন হবে। মোট আট দফায় ২৯৪ টি আসনে নির্বাচন হতে চলেছে রাজ্য। শাসক থেকে বিরোধী সব দলগুলোই নির্বাচনের আগে জোরকদমে প্রচার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। একদিকে তৃণমূল যেমন দাবি করছে যে তাঁরাই ক্ষমতায় থাকবে আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হবেন।

তেমনই রাজ্যের প্রধান প্রতিপক্ষ ভারতীয় জনতা পার্টিও প্রথমবার বাংলার ক্ষমতায় আসার দাবি করছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সহ বঙ্গ এবং কেন্দ্র বিজেপি সব নেতাই দাবি করছে যে বিজেপি ২০০-র বেশি আসন নিয়ে এবার ক্ষমতায় আসছে। আরেকদিকে, বামেরা রাজ্য দখল করতে জোট করেছে। এবার তাঁদের জোট সঙ্গী হল তাঁদের পুরনো বন্ধু কংগ্রেস এবং ফুরফুরা শরীফের পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকীর দল ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট।

রাজ্যে শাসক বিরোধী ক্ষমতায় ফেরার দাবির মধ্যে CNX Opinion Poll এর সমীক্ষা সামনে এসেছে। এই সমীক্ষায় শাসক বিরোধী সব দলেরই ভূম উড়িয়ে দিয়েছে। ২৯৪টি আসনের মধ্যে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতায় ক্ষমতায় আসার জন্য দরকার ১৪৮ টি আসন। কিন্তু কোনও পক্ষই ১৪৮টি আসনের দোরগোড়ায় যেতে পারছে না।

CNX Opinion Poll অনুযায়ী, রাজ্যে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস ৪০ শতাংশ ভোট পেতে পারে। বিজেপি পেতে পারে ৩৮ শতাংশ ভোট। বাম-কংগ্রেস-ISF পেতে পারে ১৬ শতাংশ এবং অন্যান্যরা ৬ শতাংশ ভোট। ওই সমীক্ষাতে দেখানো হয়েছে যে, রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল ১৩৬ থেকে ১৪৬টি আসন পেতে পারে। যা একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার থেকে কম।

আরেকদিকে সমীক্ষায় দেখানো হয়েছে যে বিজেপি ১৩০ থেকে ১৪০টি আসন দখল করতে পারে। বিজেপিও একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাচ্ছে না। বাম-কংরেস-ISF জোট ১৪ থেকে ১৮টি আসন পাবে বলে দেখানো হয়েছে। এছাড়াও অন্যান্যদের দখলে থাকবে ১ থেকে ৩টি আসন।

রাজ্যে কোনদল নির্বাচন জিতবে? সমীক্ষায় দেখানো হয়েছে ৪৪ শতাংশ মানুষ মনে করছে বিজেপি জিতবে। ৪২ শতাংশ মানুষ মনে করছেন তৃণমূল জিতবে। আর ৭ শতাংশ মানুষ মনে করছেন সংযুক্ত মোর্চা রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে পারে।

মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কাকে দেখতে চান? ৩৯ শতাংশ মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থন করেছেন। দিলীপ ঘোষ ২২ শতাংশ মানুষের সমর্থন পেয়েছেন। শুভেন্দু অধিকারী পেয়েছেন ১২ শতাংশ মানুষের সমর্থন। কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী পেয়েছেন ৭ শতাংশ মানুষের সমর্থন। মুকুল রায় ৫ শতাংশ, বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী ৪ শতাংশ আর অন্য কাউকে ১১ শতাংশ মানুষ সমর্থন করেছেন।

Related Articles

Back to top button