নতুন খবরপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘আপনি মমতার হার বাঁচান”, সপাটে জবাব দিয়ে কুণালের মুখ বন্ধ করলেন লকেট

কলকাতাঃ আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় দল ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর আরও এক বিজেপির তারকা সাংসদকে নিয়ে জল্পনা ছড়িয়েছিল। হুগলীর বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে বিগত কয়েকদিন ধরেই রাজনতিইক পারদ চড়েছে। কিছুদিন আগে একটি সংবাদমাধ্যমে এও দাবি করা হয়েছিল যে, লকেট কালীঘাটে গিয়ে অভিষেকও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন।

এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই বিজেপির অন্দরে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। তবে সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট করে ওই বিষয়ে ক্ষোভ উগরে দেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘আমি সচারচর ভুয়ো খবরকে পাত্তা দিইনা। কিন্তু এই খবর নিয়ে মুখ খুলতে বাধ্য হলাম। সবার আগে বলে দিই, আমি আয়ারাম গয়ারাম রাজনীতিতে বিশ্বাসী নই। আমার বিরুদ্ধে কিছু সংবাদমাধ্যম ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে। তাঁরা এভাবেই বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট করছে।”

লকেট চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘সামনের বছর উত্তরাখণ্ড বিধানসভা নির্বাচনে সহ-পর্যবেক্ষক করা হয়েছে আমাকে। বাংলা প্রথমবার কোনও মহিলা এতবড় দায়িত্ব পেলেন। এসবের মধ্যে আমি কেন বিজেপি ছাড়তে যাব? হাতের সামনে থাকা জাতীয় রাজনীতিতে কাজ করার সুযোগ ছেড়ে দিয়ে, রাজ্য রাজনীতির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকার কোন কারণ তো দেখতে পাচ্ছি না আমি’।

এরপর আজ তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ একটি ট্যুইট করে আবারও লকেটকে নিয়ে জল্পনা বাড়িয়ে দেন। কুণালবাবু ট্যুইট করে লকেট চট্টোপাধ্যায়কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘ভবানীপুরে প্রচারে না যাওয়ার জন্য বিজেপির স্টার প্রচারক লকেট চট্টোপাধ্যায়কে অসংখ্য ধন্যবাদ। বিজেপির তরফ থেকে বারবার অনুরোধ করা স্বত্বেও আপনি সেখানে যাননি। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন, বন্ধু হিসেবে আপানর সাফল্য কামনা করছি।” কুণাল আরও লেখেন, ‘আশাকরি সেই দিনটা আবারও ফিরে আসবে, যেদিন আপনি নিজের রাজনৈতিক জীবনের শুরু করেছিলেন।”

কুণাল ঘোষের এই ট্যুইটের পর ফের সরব হল হুগলীর বিজেপির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। তিনি কুণাল ঘোষের ট্যুইটটি রিট্যুইট করে লেখেন, ‘আপনার উচিৎ এটা নিশ্চিত করা যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেন ভবানীপুরে হেরে না যান।” লকেটের এই ট্যুইটে কিছুটা হলেও জল্পনায় ইতি টানল। কিন্তু আগামী দিনে কী হবে, সেটা দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছে বাংলার জনতা।

 

Related Articles

Back to top button