নতুন খবরভারতবর্ষ

মমতার হয়ে প্রচারে আসার আগেই টলমলে মহারাষ্ট্রের মহাজোট সরকার! চাপে উদ্ধব

মুম্বাইঃ জাতীয় রাজনীতিতে চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কিছুদিন আগে ধন কুবের মুকেশ আম্বানির বাড়ির সামনে একটি বিস্ফোরক বোঝাই গাড়ি উদ্ধার হওয়ার পর মহারাষ্ট্রের শিবসেনা সরকার সঙ্কটে পড়েছে। মুকেশ আম্বানির বাড়ির সামনে গাড়ি রাখার দায় স্বীকার করেছিল জইশ-উল-হিন্দ নামের একটি জঙ্গি সংগঠন। আর যেই গাড়িতে করে আম্বানির বাড়ির সামনে বিস্ফোরক পদার্থ রাখা হয়েছিল, সে স্করপিও গাড়ি করেই মুম্বাইয়ে পুলিশের আধিকারিক শচীন ওয়াজে রিপাবলিক টিভির সঞ্চালক অর্ণব গোস্বামীকে গ্রেফতার করতে গিয়েছিলেন।

এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পর মুম্বাই পুলিশের মধ্যেই চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। এই ঘটনা সামনে আসার পর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা মুম্বাই পুলিশের অফিসার শচীন ওয়াজেকে গ্রেফতার করে। আর এরই মধ্যে মুম্বাই পুলিশের প্রাক্তন কমিশনা পরমবীর সিং এমন এক বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন, যার ফলে মহারাষ্ট্রে জোট সরকারে উপর চরম সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

মুম্বাই পুলিশের প্রাক্তন কমিশনার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেকে একটি চিঠি পাঠিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন। তিনি ওই চিঠিতে বলেছেন যে, মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ মুম্বাই পুলিশের অফিসার তথা এনকাউন্টার স্পেশালিষ্ট শচীন ওয়াজেকে ১০০ কোটি টাকার তোলাবাজি করার টার্গেট দিয়েছিলেন। পরমবীর সিংয়ের এই অভিযোগের পর মহারাষ্ট্রের জোট সরকার টলমলে।

আরেকদিকে, এই অভিযোগের পর মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ মুম্বাই পুলিশের প্রাক্তন কমিশনার পরমবীর সিংয়ের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছেন বলে জানা গিয়েছে। অনিল দেশমুখ পরমবীর সিংয়ের এই অভিযোগ খারিজও করে দিয়েছেন।

আর একদিকে যখন গোটা মহারাষ্ট্র শচীন ওয়াজে এবং অনিল দেশমুখকে নিয়ে ব্যস্ত, তখন আরেকদিকে শিবসেনার মুখপাত্র তথা মহারাষ্ট্রে শিবসেনা-কংগ্রেস-NCP জোট গড়ার মুখ্য কারিগর সঞ্জয় রাউতের একটি টুইট জল্পনা ছড়িয়েছে। সঞ্জয় রাউত টুইট করে একটি কবিতার মাধ্যমে লিখেছেন, ‘আমি এখন নতুন বন্ধুদের খোঁজ করছি।” ওনার ওই পোস্টের পর জল্পনা ছড়িয়েছে যে, তাহলে এখন শিবসেনা কি নতুন সঙ্গী খোঁজ করছে?

আরেকদিকে, মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ নিয়ে NCP প্রধান জরুরী বৈঠক ডেকেছেন। একদিকে যখন পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে বিজেপিকে হারাতে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে প্রচারে আসার ইচ্ছে প্রকাশ করেছে এনসিপি এবং শিবসেনার মতো দলের প্রধানরা। তখন আরেকদিকে, নিজ সরকারের বিরুদ্ধে এরকম চাঞ্চল্যকর অভিযোগ ওঠার পর কার্যত ব্যাকফুটে তাঁরা।

Related Articles

Back to top button