Press "Enter" to skip to content

৪১ থেকে ১৫৩ দিনের মধ্যে ভেঙে যাবে মহারাষ্ট্রের নতুন সরকার! দাবি বিখ্যাত জ্যোতিষর।

শেয়ার করুন -

মহারাষ্ট্রে জনগনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক খেলা প্লাটি মেরেছে। আসলে নির্বাচনের আগে শিবসেনা ও বিজেপি জোট করেছিল। সেই অনুযায়ী জনগণ ভোট প্রদান করেছিল। কিন্তু ভোটের ফলাফল আসার পর উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। যার ফলে জোট ভেঙে যায় এবং শিব সেনা কংগ্রেসের সাথে মিলে সরকার গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়। এর মাঝের সময়কালেও বহু রাজনৈতিক কর্মকান্ড দেখা মেলে মহারাষ্ট্রে। দীর্ঘ রাজনৈতিক তামাশার পর আজ উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রী পদের শপথ নেবেন। এর মধ্যে 75 বছর বয়সী বৈদিক জ্যোতিষ এই নতুন সরকার সম্পর্কে একটি ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন।

 

সুশীল চতুর্বেদী নামে এক জ্যোতিষ মধ্যাহ্ন আলোচনায় দাবি করেছিলেন যে এই জোট বেশি দিন স্থায়ী হবে না। তাঁর হিসাব মতে, এপ্রিলের মধ্যে এই সরকার ভেঙে যাবে। সুশীল চতুর্বেদী বলেছেন, উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রী পদের শপথ গ্রহণের সময়কে কেন্দ্র করে অনেকে কিছু ঘোরপাক খাবে। চতুর্বেদীজির ভবিষ্যতবাণী অনুযায়ী এটি বর্ণিত হয়েছে যে নির্ধারিত সময়ে যদি উদ্ধব আজ শপথ নেন, তবে আগামী সময়ে তাঁর জন্য সমস্যা হবে। আজ শপথ নিলে নতুন সরকার 7 ফেব্রুয়ারি থেকে 28 এপ্রিলের মধ্যে ভেঙে যাবে।

জানিয়ে দি, আজ উদ্ধব ঠাকরে শপথ নিতে চলেছেন, অর্থাৎ ২৮ নভেম্বর সন্ধ্যা 6.৪০ মিনিটে। জ্যোতিষশাস্ত্র সুশীল চতুর্বেদী মতে শপথের জন্য নির্ধারিত সময় গ্রহদের অবস্থান অনুসারে অনুকূল নয়। এই সময়, বৃষটি আরোহী হয়। শনি, শুক্র এবং চাঁদ অষ্টম ঘরে যোগাযোগ করে বসে আছে, যা শেষ সময়কে বোঝায়। এর পরে, মঙ্গল ও বুধও ষষ্ঠ স্থানে বসে, যা শত্রুদের গৃহ। সুতরাং, শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের সময় অনুসারে, এই জোট সেই সময়ে ভেঙে যাবে যখন এই সমস্ত গ্রহ রাহু এবং কেতুর মধ্যে আসবে।

সুশীল চতুর্বেদী ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ এপ্রিলের মধ্যে সময়টি জোটের জন্য সবচেয়ে সমস্যাজনক সময় হবে। কারণ এই সময়ে মতপার্থক্য চরমে থাকবে। তাদের মতে, এই মত পার্থক্যগুলি এই জোটকে ধ্বংস করবে। এ ছাড়া জ্যোতিষ চতুর্বেদী শিবসেনার নাম না বলে উল্লেখ করেছেন যে তিনি সরকার গঠনের ইচ্ছায় যে পদক্ষেপ নিয়েছেন, তার ফলে তারা আগামী সময়ে রাজ্যের বেশিরভাগ আসন হারাবেন। এই সময়ে, জ্যোতিষজিকে যখন এই সমস্যাটি সমাধান জিজ্ঞাসা করা হয়, তখন তিনি এড়িয়ে যান। জ্যোতিষজি বলেন আমি এখানেই সব বলে দিলে দক্ষিণা কে দেবে।