Press "Enter" to skip to content

আমার সরকার বরখাস্ত করে দিলেও CAB,NRC মানবো না: মমতা ব্যানার্জী।

শেয়ার করুন -

CAB বিল পাশ হয়ে তা আইনে পরিণত হওয়ার পর এখন দেশজুড়ে বিতর্কের শেষ হচ্ছে না। CAB তে ধর্মের ভিত্তিতে ভেদাভেদ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দাবি করা হয়েছে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আগত মুসলিমদেরও ভারতে নাগরিকত্ব দেওয়ার হোক। CAB তে পাকিস্তান , বাংলাদেশ থেকে আগত হিন্দু, শিখ, জৈন, খ্রিষ্টানদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। অর্থাৎ যারা ধার্মিক কারণে এই ইসলামিক দেশগুলিতে নিপীড়িত শোষিত তথা অত্যাচারিত তারা ভারতে নাগরিকত্ব পাবেন।

নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (CAA) সম্পর্কে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)মোদী সরকারকে প্রকাশ্যে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, যতদিন আমি বেঁচে আছি ততদিন আমি কখনই এনআরসি বা নাগরিকত্ব আইন প্রয়োগ করব না। যদি আপনি (কেন্দ্রীয় সরকার) আমার সরকারকে বরখাস্ত করতে চান বা আমাকে কারাগারে আটকে রাখতে চান তা সত্ত্বেও আমি এই কালো আইনটি কখনও প্রয়োগ করতে দেব না। । এই আইন শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমি সাংবিধানিক পদ্ধতিতে লড়াই চালিয়ে যাব।

পশ্চিমবঙ্গে হওয়া হিংসার পেছনে মমতা ব্যানার্জী বিজেপিকে দায়ী করেছেন। মমতা ব্যানার্জী বলেছেন বিজেপি টাকা দিয়ে এসব হিংসা করাচ্ছে। শুধু এই নয়, মমতা ব্যানার্জী বলেছেন “যদি CAB হয় তবে সেটা আমার শবদেহের উপর দিয়ে হবে। আপনারা কি করবেন? সরকার বরখাস্ত করে দেবেন? তাও আমি লড়াই চালিয়ে যাব।”

প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, পশ্চিমবঙ্গে লুঙ্গি বাহিনী ব্যাপক উপদ্রব শুরু করেছে। লুঙ্গি বাহিনী দেশের GDP বৃদ্ধি করতে ১% অবদান না রাখলেও GDP এই ক্ষতি করতে বড়ো ভূমিকা পালন করছে। বহু ট্রেন, রেল স্টেশন, বাস, টোল প্লাজা আগুন জ্বালিয়ে নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। লক্ষণীয় বিষয় এই যে, পুজোর সময় কেউ বাজি ফাটালে তার জন্য বহু গ্রেফতার হয়ে যায়। কিন্তু লুঙ্গি বাহিনী কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি নষ্ট করা সত্ত্বেও কোনো একটাও গ্রেফতার করার খবর সামনে আসেনি।