Press "Enter" to skip to content

প্রধানমন্ত্রীর প্রচার অভিযানে নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি মমতার, বললেন দরকার হলে আমিও করব না

শেয়ার করুন -

বারাসতঃ মঙ্গলবার রাত ৮টায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রচার অভিযান থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠেছে। এরপরই তিনি বারাসতে একটি নির্বাচনী জনসভায় অংশ নেন। আর সেখান থেকেই তিনি বিজেপি এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে সরব হন। বারাসাতের জনসভা থেকে তিনি প্রশ্ন করে বলেন, নির্বাচনের দিনে কেন রাজ্যে প্রচারে আসবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী? তিনি অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনের দিনে রাজ্যে প্রচারে এসে ভোটারদের প্রভাবিত করছেন প্রধানমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, নির্বাচনের দিনে বাংলায় প্রধানমন্ত্রীর প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করুক কমিশন।

বলে রাখি, রাজ্যে ইতিমধ্যে চার দফার নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। আর প্রতিটি দফার নির্বাচনের দিনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যে এসে নির্বাচনী জনসভা করেছেন। নির্বাচনের দিনে পাশেই হোক আর দূরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জনসভা করেছেন। যদিও, বাদ যাননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধায়ও। তিনিও নির্বাচনের দিনে অন্য কেন্দ্রে জনসভা করেছেন। মঙ্গলবার তিনি বলেছেন, প্রয়োজনে আমিও নির্বাচনের দিনে জনসভা করব না।

বারাসাত থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘প্রতিটা নির্বাচনের দিনেই তিনি বাংলায় আসছেন। একটা মিটিংয়ে ১০০-৫০০ কোটি তাকা খরচ। ওই টাকা দিয়ে কি তফসিলি মেয়ের বিয়ে দেওয়া যেত না? ভোটের দিন আসছেন আর মিথ্যা কথা বলে যাচ্ছেন। আপনারাই বলুন এটা কি ঠিক? অন্য কোনও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের বলা আর প্রধানমন্ত্রীর বলার মধ্যে অনেক ফারাক আছে। দরকার হলে আমিও নির্বাচনের দিনে কোনও মিটিং করব না। এই বিষয়ে আমি নির্বাচন কমিশনের নজর কাড়ছি।”

এরপর মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘উনি ঠিক বেছে বেছে নির্বাচনের দিনেই প্রচারে আসছেন। নিজেকে খুব বড় নেতা মনে করছেন। ভাবছেন মানুষ ওনার মুখ দেখেই ভোট দিয়ে দেবে। উনি যেন সুপার ভগবান।” মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের মতো লড়াই করব। ওঁরা বাকি চার দফাতেও আমাকে জ্বালাবে আমি জানি। ওঁরা সবাই আমাকে হারানোর জন্য উঠেপড়ে লেগে আছে। কিন্তু আমাকে হারানোর ক্ষমতা ওদের মধ্যে নেই।”