Press "Enter" to skip to content

পা অচল, তবুও ছয় বছর ধরে নিঃস্বার্থ ভাবে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিয়েছেন ৬৯ বছর বয়সী রাজপ্পন

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ যদি আপনাকে বলা হয় যে, একজন বয়স্ক ব্যাক্তি, যিনি প্যারালাইসিসে আক্রান্ত, চলতে পারেন না। কিন্তু প্রতিদিন ঝিলে গিয়ে সেখানে পড়ে থাকা ময়লা পরিস্কার করেন। তাহলে আপনি কেন, যে শুনবে সেই অবাক হয়ে যাবে। এই গল্প ৬৯ বছর বয়সী এনএস রাজপ্পনের (NS Rajappan)। তিনি কেরলের কোট্টয়ম জেলার বসিন্দা।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, রাজপ্পন বিগত ছয় বছর ধরে একটি লেক থেকে প্ল‌াস্টিকের বর্জ্য উদ্ধারের কাজ করে আসছেন। শুধু তাই নয়, ওনার পায়ের নীচের অংশ অচল। আর সেই কারণে উনি চলতেও পারেন না। এরপরও তিনি নিজের হাতের উপর ভর করে ঝিলে গিয়ে নোংরা পরিস্কার করেন। তিনি রোজই ভারতের স্বচ্ছ জলের দীর্ঘতম হ্রদ ভেম্বানাদ (Vembanad) আর কুমারকোম থেকে প্লাস্টিকের বর্জ্য পরিস্কার করেন।

বলিউড অভিনেতা রণদীপ হুডা রাজপ্পনের ভিডিও (Video) শেয়ার করেন। উনি ট্যুইটারে এই ভিডিও শেয়ার করে লেখেন, ‘কেউ দেশের প্রতি নিজের ভালোবাসা কি করে ব্যাক্ত করতে পারে? ভালোবাসা সবসময় কাজের মধ্যে দেখা যায়, শব্দ আর সোশ্যাল মিডিয়ায় না। রাজপ্পানকে সেলাম জানাই। এটাই দেশভক্তির আসল চেহারা।”

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, রাজপ্পন প্লাস্টিক জমা করার জন্য একটি বোট ভাড়ায় নেন। তারপর তিনি গোটা লেকে ফেলে দেওয়া প্লাস্টিকের বোতল জমা করেন। রাজপ্পান বলেন, ‘আমি এর থেকে বেশি কিছু পাই না, প্লাস্টিক বোতল দিয়ে গোটা বোট ভরে গেলে খুব বেশি এক কেজি ওজন হয়। আর এই এক কেজির জন্য আমি ১২ টাকা পাই। কারোর তো জলের নোংরা পরিস্কার করতে হবে? আমি গোটা জীবনই জলের আশেপাশে ছিলাম। আমি সেটাই করছি, যেটা আমার জন্য করা সম্ভব। আমি নিজের বড় নৌকা চাই, আমি বড় নৌকা পেলে আরও বেশি করে প্লাস্টিক জমা করতে পারব, আরও বেশি করে ঝিলকে স্বচ্ছ বানাতে পারব।”

এই সাফাই দেবতার পাশে একটি ভাঙাচোরা ঘর আছে, সেখানেই তিনি থাকেন। পাশেই ওনার বোন থাকে, আর সেই তাঁকে খাওয়ার দেয়। দুই বছর আগে হওয়া বন্যায় ওনার সর্বস্য ভেসে যায়। কিন্তু তা স্বত্বেও তিনি হার মানেন নি। আর তারপর থেকে তিনি পরিবেশের প্রতি নিজের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।