Press "Enter" to skip to content

লাল চীনকে রগড়ে সাদা করে দেওয়ার মুডে মুকেশ আম্বানি, বন্ধ হবে চীনের একচেটিয়া ব্যাবসা

শেয়ার করুন -

চীনকে কড়া জবাব দিতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পাশাপাশি সাধারণ নাগরিক যেভাবে কোমর বেঁধেছে তা এই প্রথমবার দেখা মিলছে।ভারত সরকার নিজের মতো করে চীনের বিরুদ্ধে একশন নিচ্ছে। অন্যদিকে দেশের জনগণ ১ টা পিন কিনতে গেলেও মেড ইন চাইনা কিনা যাচাই করছে। ভারতের জনগণ চীনকে শিক্ষা দিতে সমগ্র শক্তি ঝুঁকে দিয়েছে। ভারতের সাধারণ জনগণের সাথে সাথে এবার ভারতের ব্যবসায়ীরাও চীনের বিরুদ্ধে মাঠে নেমে পড়েছে।

জিন্দাল গ্রুপ কিভাবে চীনকে ঝটকা দিয়েছে তা আগেই আমরা India Rag এর পাঠকদের জানিয়েছি। এখন ভারতের বিখ্যাত শিল্পপতি মুকেশ আম্বানিও লাল চীনকে রগড়ে সাদা করার পরিকল্পনা করে নিয়েছেন। চীনের উপর যাতে তৎকাল প্রভাব পড়ে সেই ধরনের পরিকল্পনা করে ফেলেছেন মুকেশ আম্বানি।

প্রথমত জানিয়ে দি, চীন নিজের দেশে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, গুগল সহ নানা সাইট ব্যান করে রেখেছে। অন্যদিকে নিজের অ্যাপ বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়ে গোয়েন্দাগিরির কাজে লাগায়। এই লকডাউনে চীন এই সকল কুকাজে খুব বেশি সক্রিয় হয়ে পড়েছে। যেহেতু এখন মিটিং ইত্যাদি কাজের জন্য লোকজন ভিডিও কনফারেন্সের সাহায্য নিচ্ছে। তাই বিশ্বজুড়ে লোকজন ভরপুর মাত্রায় চাইনিজ অ্যাপ জুম ব্যাবহার করছে। যা মূলত ব্যাক্তিগত তথ্য চুরি ও অন্য দেশে গুপ্তচরের কাজ করে।

চাইনিজ অ্যাপ জুমে বেশকিছু ফিচার্স রয়েছে যার ব্যবহার মিটিংয়ের মতো কাজে লাগে। এখন এই চাইনিজ অ্যাপকে ধুয়ে মুছে সাফ করতে নেমে পড়েছেন মুকেশ আম্বানি। মুকেশ আম্বানির জিও নতুন অ্যাপ লঞ্চ করে দিয়েছে যা জুম অ্যাপ এর মতো পরিষেবা দেয়। এই অ্যাপ এর নাম জিও মিট(Jio meet)। শুধু এই নয় যে ফিচার্সগুলির জন্য জুম টাকা নেয় সেগুলি ফ্রীতে প্রদান করে জিও মিট। অর্থাৎ চীনের একচেটিয়া ব্যাবসার উপর কড়া প্রহার করার মুডে আম্বানির জিও।

খবর এও আসছে যে, জিও মিট এবার জুমকে পেছনে ফেলে দিয়েছে। যারা জুম অ্যাপ ব্যাবহার করতে বাধ্য ছিল তারাই এখন জিও মিট ইনস্টল করতে শুরু করেছেন। অনেকে ভারতের সেনা চাইনিজ সেনাকে ধোলাই দিয়েছে, আর এখন ভারতীয় ব্যাবসায়ীরা চীনের ব্যবসায়ীদের ধোলাই দিচ্ছে