নতুন খবরভারতবর্ষ

জয় শ্রী রাম বলায় মসজিদে গিয়ে ক্ষমা চাইত হল মুসলিম ব্যাক্তিকে!

অযোধ্যায় (Ayodhya) শনিবার এক মুসলিম ব্যাক্তি ‘জয় শ্রী রাম” বলার পর মসজিদে গিয়ে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়। প্রসঙ্গত, ১লা সেপ্টেম্বর অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের জন্য তপস্বী ছাউনিতে স্বামী পরমহংস দাসের নেতৃত্বে একটি যজ্ঞের আয়োজন করা হয়েছিল। ওই ধার্মিক অনুষ্ঠানে হিন্দু সাধু সন্তদের সাথে সাথে মুসলিমেরাও অংশ  নিয়েছিলেন। সেখানে মুসলিম সম্প্রদায়ের মহিলা এবং পুরুষেরা রাম মন্দিরে সমর্থনে যজ্ঞ করেন এবং জয় শ্রী রামের স্লোগান দেন।

ওই যজ্ঞে বজীরগঞ্জের বাসিন্দা হাজি সাইদও অংশ নিয়েছিলেন। আপনাদের জানিয়ে রাখি, এই যজ্ঞের ছবি আর ভিডিও সার্বজনীন হওয়ার পর সবার নজরে আসে। ভিডিও সামনে আসার পর হাজি সাইদকে তাঁর ধর্ম এবং এলাকার মানুষেরা বিভিন্ন রকমের কথা শুনাতে থাকে। এমনকি ধর্মের ঠিকারদাররা হাজিকে ধর্ম থেকে বহিস্কার করে তাঁকে কাফির বলে আখ্যা দেয়। আশেপাশের এলাকার মুসলিম ব্যাক্তিরা ওনাকে কাফির বলে ডাকা শুরু করে, আর সে হিন্দু হয়ে গেছে বলে জানায়।

মুসলিমেরা হাজির বিরুদ্ধে নানারকম গুজব ছড়াতে থাকে। এমনকি এও বলা হয় যে, হাজি কুরানের অবমাননা করেছে। হাজি মন্দিরে গিয়ে পূজা করেছে। আর এই কারণে ওনার মুসলিম হওয়ার কোন অধিকার নেই। বজীরগঞ্জের বাসিন্দা হাজি সাইদ জানান, জয় শ্রী রাম ধ্বনি দেওয়ার জন্য ওনাকে ইসলাম ধর্ম থেকে বহিস্কার করা হয়। সবাই ওনাকে কাফির বলে ডাকা শুরু করে আর হিন্দু বলে আখ্যা দিতে থাকে। হাজি জানান, আমার আল্লাহই আমার খোদা।

হাজি জানান, আমি নামাজের জন্য মসজিদে গেছিলাম। আর আমি স্বেচ্ছায় আল্লাহ-র কাছে ক্ষমা চেয়েছি। যদিও তিনি এখন নিজের উপর কোন বিপদের আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না। উনি জানান, অনেকেই আমাকে পরিণাম ভোগার জন্য ভয় দেখাচ্ছে। আরেকদিকে তপস্বী ছাউনিতে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য সমস্ত বাধা দূর করার খাতিরে যজ্ঞ আর পূজা করা পরমহংস দাস বলেন, মর্যাদা পুরষোত্তম ভগবান শ্রী রামের নাম নেওয়ার জন্য রাশ্ত্রবাদি মুসলিমকে কাফির বলা হয়েছে। এটা গণতন্ত্রের জন্য বিপদ। প্রভু শ্রী রাম গোটা সমাজকে মর্যাদা দেওয়ার বার্তা দিয়েছিলেন। উনি কোন ধর্মে আবদ্ধ ছিনেল না। পরমহংস দাস এরকম মানুষের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন।

Back to top button
Close