Press "Enter" to skip to content

মোদী সরকার ও CAB এর সমর্থনে হাতে ট্যাটু করলো মুসলিম মহিলার! বললো আমরা সরকারের পাশে আছি।

শেয়ার করুন -

CAB বিল অনুযায়ী বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আগত সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। CAB বিল এখন আইনে পরিণত হয়েছে তবে এটা নিয়ে দেশে যে বিতর্ক চলছে তা থামার নাম নিচ্ছে না। অনেকে বলেছে যে CAB তে ধর্মের ভিত্তিতে ভেদাভেদ করা হচ্ছে। দাবি করা হয়েছে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আগত মুসলিমদেরও ভারতে নাগরিকত্ব দেওয়ার হোক। CAB তে পাকিস্তান , বাংলাদেশ থেকে আগত হিন্দু, শিখ, জৈন, খ্রিষ্টানদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। অর্থাৎ যারা ধার্মিক কারণে এই ইসলামিক দেশগুলিতে নিপীড়িত শোষিত তারা ভারতে নাগরিকত্ব পাবেন। নাগরিকত্ব আইন এর বিরুদ্ধে এখন দেশের নানা জায়গায় কট্টরপন্থীরা বিরোধ দেখাতে শুরু করেছে।

অন্যদিকে বহু মানুষ এই বিলের সমর্থনেও কট্টরপন্থীদের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছেন। CAB এখন রাষ্ট্রপতির মঞ্জুরীর পর CAA তে পরিণত হয়েছে। জামিয়া, এএমইউ, মাওলানা আজাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো অনেক মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংগঠনগুলি আইনটির বিরোধিতা করেছে। মুসলিম ছাত্ররা আইনের প্রতিবাদ জানিয়ে পুলিশের উপর পাথর ছুঁড়েছে, কেউ কেউ বাস ভাঙচুর করেছে। দিল্লীতে বেশ কয়েকটি বসে আগুন লাগিয়েও দেওয়া হয়েছে। আইনের বিরুদ্ধে থাকা প্রদর্শনকারীরা চাই যে, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে আগত মুসলিমদেরও নাগরিকত্ব দেওয়া হোক।

তবে এখন অনেক ভারতীয় মুসলিমরা উপদ্রবকারীদের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছে। কিছু মুসলিম কন্যা CAB এর সমর্থন জানিয়ে হাতে ট্যাটুও বানিয়েছে। উত্তরপ্রদেশের বারাণসী থেকে এই খবর সামনে আসছে। যেখানে মুসলিম সমাজের মহিলারা হাতে ট্যাটু বানিয়ে CAB এর সমর্থন জানিয়েছে। আকিরা খান নামের এক মুসলিম মহিলা বলেন, যেভাবে ভাঙচুর চলছে তাতে দেশের ক্ষতি, আমাদের দেশের নাম খারাপ হচ্ছে।

আকিরা বলেন আমি ও আমরা বন্ধুরা হাতে ট্যাটু বানিয়ে এই আইনের সমর্থন জানাচ্ছি। প্রসঙ্গত জনিয়ে দি, CAB পশ্চিমবঙ্গে লুঙ্গি বাহিনী গত কয়েকদিন ধরে বেশ উৎপাত চালিয়েছে। প্রায় ১০০ কোটি টাকার রেলের সম্পত্তি নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। তবে এখন লুঙ্গি বাহিনীর জন্য খারাপ খবর সামনে আসছে। দেশে এমন অশান্তির মধ্যে কেন্দ্রীয় রেল প্রতিমন্ত্রী বড়ো বিবৃতি দিয়েছেন। রেল প্রতিমন্ত্রী সুরেশ অঙ্গারি (Suresh Angadi) বলেছেন যদি কেউ রেলের সম্পত্তি নষ্ট করতে আসে তাহলে তাকে সেই স্থানেই গুলি করে মারা উচিত।