আন্তর্জাতিকনতুন খবর

ফিলিস্তিন সমর্থকদের জন্য খারাপ খবর! অখন্ড ইজরায়েল গড়তে চান নাফতালি বেনেট

‘অখন্ড ভারত’ কথাটি ভারতবর্ষে বর্তমানে বেশ প্রচলিত। আপনি যদি India Rag এর নিয়মিত পাঠক হন তাহলেও বহুবার এই কথাটির সাথে পরিচিত হয়ে থাকবেন। তবে বিগত কয়েকদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে কথা নিয়ে হৈচৈ শুরু হয়েছে তা হলো ‘অখন্ড ইজরায়েল।’ আসলে লাগাতার ১২ বছর রাজ করার পর বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহুর শাসনকাল সমাপ্ত হয়েছে। আর সেই সাথেই ইজরায়েল নতুন প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেটকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চা তুঙ্গে উঠেছে।

বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহুর হারের সাথে সাথে ভারত দেশের কট্টরপন্থী ও উন্মাদীরা আনন্দউৎসব শুরু হয়েছে। ইজরায়েলের নতুন প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট রাষ্ট্রনীতি সম্বন্ধে কি ধরনের মানসিকতা রাখেন তা নিয়ে না জেনেই কট্টরপন্থীরা আনন্দউল্লাসে মেতেছে। যদিও ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী পরিবর্তন নিয়ে পাকিস্তান বা তুর্কি একবারে রামগুড়ুরের ছানার রূপ নিয়েছে তথা মুখে লাগাম লাগিয়েছে।

প্রথমত জানিয়ে দি, ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী সেনার একজন প্রাক্তন কমান্ডোর। আতঙ্কবাদীদের বিরুদ্ধে ইজায়েলের সেনার কমান্ডোর হিসেবে বহু অপারেশনে অংশ নিয়েছেন নাফতালি বেনেট। এক সময় বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহুর পার্টির হয়ে কাজ করতেন নাফতালি বেনেট। বহুবার বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহুর নির্বাচনী প্রচারের দায়িত্বে ছিলেন নাফতালি বেনেট। ইজরায়েলের শিক্ষামন্ত্রী এবং রক্ষামন্ত্রী পদও সামলেছেন নাফতালি বেনেট।

পরে ২০১৯ সালের দিকে বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহু এবং নাফতালি বেনেটের মধ্যে বৈচারিক মতভেদ দেখা যায়। ফিলিস্তিনকে কেন্দ্র করে দুই নেতার ভিন্নভাবে চিন্তা ভাবনা করেন। আসলে গাজায় বসবাসকারী ফিলিস্তিনিদের নিয়ে বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহু একটু নরমপন্থী ছিলেন। ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক এলকায় ইহুদি এবং ফিলিস্তিনিরা একসাথে থাকতে পারবে বলে মনে করতেন বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহু। অন্যদিকে পুরো জমিকে শুধুমাত্র ইহুদিবাদীর বলে মনে করেন নাফতালি বেনেট। আর এই কারণে ইজরায়েলি মিডিয়া নাফতালিকে আলট্রা রাষ্ট্রবাদী আখ্যা দেয়।

ইজরায়েলি মিডিয়ায় দাবি অনুযায়ী, নাফতালি বেনেট অখন্ড ইজরায়েলের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে চান। গ্রেটার ইজরায়েল বা অখন্ড ইজরায়েল নাফতালি বেনেটের মূল স্বপ্ন বলে দাবি ইজরায়েলি মিডিয়ায়। প্রসঙ্গত, অখন্ড ইজরায়েলের যে পরিকল্পনা রয়েছে তার মধ্যে সৌদি আরব, ইরান সহ বেশকিছু মুসলিম দেশের বহু জমি পড়ে।

১৯৬৭ সালে ৬ দিনে একসাথে বহু ইসলামিক দেশকে হারানোর রেকর্ড বানিয়েছে ইজরায়েল। তাই মিশর, তুর্কি, ইরানের জমি দখল করে অখন্ড ইজরায়েল তৈরির পরিকল্পনা বাস্তবে পরিণত হওয়ার অকল্পনীয় কিছু নয় বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

Related Articles

Back to top button