নতুন খবরভারতবর্ষ

খুলল নতুন ব্যবসার রাস্তা! দেশে এবার বিনা লাইসেন্সে যে কেউ খুলতে পারে চার্জিং স্টেশন

বর্তমানে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম যেখানে আকাশ ছোঁয়া সেখানে সরকার বিকল্প রাস্তা হিসেবে বৈদ্যুতিক গাড়িকে বেছে নিয়েছে। সাধারনত সাধারণ মানুষ এই গাড়ি কিনতে চান না। কারণ হচ্ছে দেশে এর পর্যাপ্ত চার্জিং সুবিধা নেই। এই অবস্থায় কেন্দ্র সরকার বৈদুতিক যান বাহন নিয়ে এক নতুন নীতি ঘোষণা করেছে যা খুব প্রশংসনীয়। এই নীতি অনুযায়ী আগামী পাঁচ বছরের জন্য সমস্ত রাজ্যের রাজধানী, প্রধান প্রধান শহর ও জাতীয় সড়ক এবং মহাসড়কে চার্জিং স্টেশন স্থাপন করবে।

সরকারের লক্ষ্য হলো প্রতি তিন কিলোমিটার এলাকার মধ্যে চার্জিং স্টেশন এবং রাজ্মার্গের উপর 25 কিলোমিটার ও 100 কিলোমিটার ক্ষেত্রে একটা ফাস্ট চার্জিং স্টেশনের সুবিধা উপভোক্তাদের প্রদান করা। 2019 সালের অক্টবর মাসেও এই নীতি জারি করা হয়েছিল কিন্তু এখন এতে অনেক সংশোধন করা হয়েছে।

নতুন নীতিতে চার্জিং এর শুল্ক কম করার কথা বলা হয়েছে যাতে আরো বেশি পরিমাণ সাধারণ মানুষ তা ব্যাবহার করতে পারে। একই সঙ্গে এই অনুযায়ী সরকারি জমিতে চার্জিং স্টেশন নির্মানের কথা হচ্ছে। সবাইকে পাবলিক চার্জিং স্টেশনের সুবিধা দেওয়া হবে কোনো লাইসেন্স ছাড়াই। কিন্তু সেক্ষেত্রে সরকারি মানদন্ড মানতে হবে। সরকারি নীতি অনুযায়ী কম দামে জমি দেওয়ার কথা ঘোষিত হয়েছে।

এক রাজস্ব মডেল তৈরি করা হয়েছে যাতে— জমি প্রদানকারী, চার্জিং স্টেশন নির্মানকারি, সুবিধা প্রদানকারী এজেন্সিকে প্রতি কিলোওয়াট এক টাকা ফি দেওয়া হবে। আবেদনের সাত দিন পরেই মেট্রো শহরগুলিতে বিদিউৎ দেওয়ার নীতিও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বড়ো শহর ও নিগম গুলিতে পনেরো দিন ও গ্রাম গুলোতে এক মাসে সময় দেয়া হয়েছে।নীতি অনুযায়ী চার্জিং স্টেশন থেকে বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলোর নির্দিষ্ট পরিমাণ চার্জ নিতে পারবে যা 2025 সলের 31 ই মার্চ পর্যন্ত সরবরাহ হবে। শুল্ক নির্ধারণের দায়িত্ব রাজ্য সরকারের উপর ন্যস্ত করা হবে। একই সময়ে কেও সংযোগ দিতে অস্বীকার করতে পারবে না।

Related Articles

Back to top button