Press "Enter" to skip to content

ভোট ব্যাঙ্কের রাজনীতির জন্য প্রাণ গেলো ৪৩ জনের, অবৈধ কারখানা চালানোর জন্য গ্রেফতার মালিক রেহান ও ফুরকান

শেয়ার করুন -

দিল্লীর (Delhi) সদর বাজার এলাকার আনাজ মান্ডিতে (Anaj Mandi) রবিবার সকাল পাঁচটা নাগাদ লেডিস পার্স, ব্যাগ আর প্ল্যাস্টিক আইটেম বানানো চারতলা ফ্যাক্টারিতে ভয়াবহ আগুন লাগে। এই অগ্নিকান্ডে ৪৩ জনের মৃত্যু হয় আর ১৭ জন গুরুতর ভাবে আগুনে পুড়ে যান। ঘটনার খবর পাওয়া মাত্রই পুলিশ দমকল বিভাগ আর অন্যান্য রেসকিউ টিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছিল।

ঘটনার সমস্য বিল্ডিংয়ে ১০০ এর বেশি মানুষ আটকে ছিলেন। ৪০ জনকে কোনভাবে সুরক্ষিত বের করা হয় আর ৬ জনকে ধীরে ধীরে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করে নিকটবর্তী হাসপাতালে পাঠানো হয়। এছাড়াও ৪৩ জনকে মৃত ঘোষণা করা হয়। আর ১৭ জনকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে যে, মৃতদের মধ্যে অনেক নাবালকও ছিল। বেশিরভাগ মৃত্যু দম বন্ধ হওয়ার কারণে হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তের পর জানা যাচ্ছে যে, শর্ট সার্কিটের থেকেই আগুন লেগেছিল।

দমকল বিভাগের এক অফিসার জানান, আগুন লাগার খবর সকাল পাঁচটা ২২ মিনিটে পাওয়া গেছিল। এরপর দমকলের ৩৪ টি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। দিল্লী সরকার মৃতদের পরিবারকে ১০ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ আর আহতদের ১ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করেছে। আরেকদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) ত্রাণ তহবিল থেকে মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষা টাকা আর গুরুতর আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। আরেকদিকে দিল্লী বিজেপি পাঁচ লক্ষ করে টাকা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে।

দিল্লী পুলিশ বিল্ডিং মালিক রেহানকে গ্রেফতার করে নিয়েছে। এই ব্যাপারে ফ্যাক্টরি মালিকের বিরুদ্ধে প্রথমেই মামলা দায়ের করে নেওয়া হয়েছিল। পুলিশ জানায় রেহানের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ড বিধির ৩০৪ ধারা (অনিচ্ছাকৃত হত্যা) অনুযায়ী মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই মামলা অপরাধ দমন শাখার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। উত্তর দিল্লীর ডিসিপি মনিকা ভরদ্বাজ জানান, বিল্ডিং মালিক রেহান আর তাঁর ম্যানেজার ফুরকানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ এই মামলার তদন্ত চালাচ্ছে।