Press "Enter" to skip to content

পূজারী তুই লাউডস্পীকার বন্ধ রাখ নাহলে মেরে বস্তায় ঢুকিয়ে দেব! মন্দিরের পূজারিকে হুমকি কট্টরপন্থীদের

শেয়ার করুন -

আধুনিক যুগে সমগ্র বিশ্বজুড়ে মানুষজন স্বর্ণোজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে অধীর আগ্রহে প্রতীক্ষারত। হতাশার সূচীভেদ্য অন্ধকারের মধ্যেও বিজ্ঞান তথা টেকনোলজির হাত ধরে নতুন সূর্যোদয়ের স্বপ্ন দেখছে ভারতবাসী। তবে আপনি শান্তি চান বা সমৃদ্ধি চান, তাতে কোনো যায় আসে না দেশের মধ্যে থাকা কট্টরপন্থীদের।

আদিম উন্মত্ত বর্বর মুঘলদের মতো উৎশৃঙ্খল ও অশান্তি ছড়িয়ে মেতে থাকতে ব্যাস্ত কট্টরপন্থীরা। মত- বিশ্বাসের পার্থক্যকে অতিরঞ্জিত করে হিংসা ছড়িয়ে শান্তিপ্রিয় মানুষদের সাথে দানবিক আচরণ করেই মনের তেষ্টা মেটায় উন্মাদের দল। যার দরুন প্রায় নিত্য দিন দেশের নানা প্রান্ত থেকে বর্বরতার নানা ছবি সামনে আসছে।

এখন হিন্দুদের পুন্যভূমি মথুরা থেকে অত্যন্ত অমানবিক খবর সামনে আসছে। যেখানে এক হিন্দু মন্দিরের পূজারীকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছে। ঘটনা মথুরার নাগাল ব্রাহ্মণ গ্রামের। সেখানে গ্রামের বাইরে এক মন্দিরে লাউডস্পীকার বাজানোর কারণে কট্টরপন্থীরা পূজারীকে মারধর করেছে ও হুমকি দিয়েছে বলে সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে।

মন্দিরের পুরোহিত বাবা পাগলাদাস অভিযোগ করেছেন যে কিছু যুবক তাকে আজানের সময় লাউডস্পীকার বন্ধ রাখার জন্য হুমকি দিয়েছেন। যদি লাউড স্পীকার বন্ধ না করা হয় তাহলে তারা তাকে কেটে বস্তার মধ্যে ঢুকিয়ে দেবে বলে হুমকি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্দিরের পূজারী। রাধা কৃষ্ণ মন্দিরের পূজারী বাবা পাগলাদাস এক সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন যে মন্দিরের প্রাঙ্গনে কোনো লাউডস্পীকার ছিল না।

পরে এক ভক্ত বাবাকে বলেন ভজন চালানোর জন্য সে লাউডস্পীকার দান করতে ইচ্ছুক। বাবা সেই দানকে স্বীকৃতি দেন এবং সেই লাউড স্পীকারেই রাধাকৃষ্ণের ভজন গাওয়া চালু করেন। আর এখন কট্টরপন্থীরা এসে লাউডস্পীকার বন্ধের জন্য প্রাণে মারার হুমকি দিচ্ছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশ FIR দায়ের করেছে এবং ১ জনকে গ্রেফতার করেছে বলেও খবর পাওয়া যাচ্ছে।