Press "Enter" to skip to content

তালিবানিদের থেকে মুক্তি পেয়ে ভারতে এসে বলল শিখেরা, ‘ইসলাম কবুল করতে বাধ্য করত”

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ আফগানিস্তানের (Afghanistan) বাসিন্দা নিদান সিংকে (Nidan Singh) এক মাস আগে অপহরণ করেছিল তালিবানিরা (Taliban)। যদিও পরে তাঁকে মুক্তও করে দেয় তাঁরা। রবিবার নিদান সিং সমেত ১১ জন আফগান শিখ (Afghan Sikh) ভারতে পৌঁছান। তাঁদের বিশেষ বিমানে করে কাবুল থেকে দিল্লীতে আনা হয়। দিল্লীর আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছানর পর তাঁদের ভারতে স্বাগত জানানো হয়। ভারত সরকার তালিবান দ্বারা অপহৃত নিদান সিংয়ের মুক্তির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। সিংয়ের মুক্তির জন্য ওনার স্ত্রী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন। ১৭ জুন আফগানিস্তানের পকটিয়া গুরুদ্বারা থেকে ওনাকে অপহরণ করা হয়েছিল। একমাস পর ওনাকে মুক্তি দেয় তালিবানিরা।

নিদান সিংয়ের সাথে এক ১৬ বছর বয়সী নাবালিকা সুনমিত কৌরও আছে। তাঁকে অপহরণ করে জোর জবরদস্তি ইসলাম গ্রহণ করিয়ে বিয়ে দেওয়ান হচ্ছিল। এরা সাবাই দীর্ঘ মেয়াদী ভিসায় ভারত এসেছে। নাগরিকতা সংশোধন আইন অনুযায়ী, এদের নাগরিকতা দেওয়া হবে।

ভারত পৌঁছানর পর আবেগপ্রবণ হয়ে নিদান সিং সচদেবা বলেন, আমি জানিনা ভারত কে কি বলতে হবে … আমার মা, না বাবা … তবে ভারত … ভারতই। উনি তালিবানি জঙ্গি দ্বারা অপহরণ করার ঘটনার কথা মনে করে বলেন, আমাকে রোজ মারধর করা হত, আমার পা বেঁধে রাখা হত আর ইসলাম কবুল করতে বলা হত।

আপনাদের বলে দিই, আফগানিস্তানে শিখ দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গিদের নিশানায় আছে। ভারতকে আঘাত দেওয়ার জন্যই তালিবানিরা আফগান শিখদের উপর অত্যাচার চালায়। কাবুল গুরুদ্বারাতে হওয়া সন্ত্রাসী হামলায় ২৫ জন শিখ ধর্মবলম্বী প্রাণ হারিয়েছিলেন। আফগানিস্তানে শিখ মহিলা, যুবতী এবং বাচ্চাদের জোর করে ধর্ম পরিবর্তন করিয়ে বিয়ে করা হয়।

কাবুলে শিখ সম্প্রদায়ের নেতা চাবুল সিং বলেন, আমাদের ১১ জনকে ছয় মাসের জন্য ভিসা দেওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে নিদান সিংও আছে। অপহরণকে তাঁর উপর অত্যাচারের কারণে সে অসুস্থ। তাঁর পরিবারকেও ভিসা দেওয়া হয়েছে। কাবুল হামলায় মৃত দুই ভাইয়ের পরিবারও ভারতে গেছে।